bangladesh
 13 Jul 18, 05:23 AM
 45             0

অপ্রতুল যাত্রী ।। বন্ধের মুখে কলকাতা-খুলনা ট্রেন ‘বন্ধন এক্সপ্রেস’

অপ্রতুল যাত্রী ।। বন্ধের মুখে কলকাতা-খুলনা ট্রেন ‘বন্ধন এক্সপ্রেস’

নিউজ ডেস্ক: দিন দিন কমছে কলকাতা-খুলনা বন্ধন এক্সপ্রেসের যাত্রী সংখ্যা৷ বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সংযোগস্থাপনকারী এই ট্রেনটির প্রতি যাত্রীদের আগ্রহ ক্রমশই কমছে৷ অন্যদিকে কলকাতা-ঢাকা মৈত্রী এক্সপ্রেসের চাহিদা তুঙ্গে ৷ বন্ধন এক্সপ্রেসে ১০টি কোচ রয়েছে৷ মোট আসন সংখ্যা ৪৫৬৷ তবে প্রায় দিনই অর্ধেকে ফাঁকা থাকছে ট্রেন৷ গড়ে মাত্র ১০০ থেকে ১২০ জন যাত্রী সফর করেন এই ট্রেনটিতে৷ অপরদিকে মৈত্রী এক্সপ্রেসে পরিস্থিতি সম্পূর্ণ ভিন্ন৷ যাত্রীদের মধ্যে মৈত্রীর চাহিদা তুঙ্গে৷ টিকিটের তুলনায় যাত্রী সংখা অনেক বেশি৷ প্রতি সফর পাঁচশোরও বেশি যাত্রী সফর করেন মৈত্রীতে৷ কেন যাত্রী সংখ্যা কমছে বন্ধন এক্সপ্রেসে? এই প্রশ্নের উত্তরে উঠে আসছে একাধিক তথ্য৷ অতিরিক্ত টিকিটের দাম, সপ্তাহে মাত্র একদিন পরিষেবা ও স্টপেজের সমস্যার জন্য বন্ধনের যাত্রী সংখ্যা কমছে৷

জানা যায়, যশোর ও বেনাপোল স্টেশনে বন্ধন এক্সপ্রেসের টিকিট বিক্রি করা হয় না৷ এই দুই স্টেশনে স্টপেজও নেই বন্ধনের৷ এছাড়াও টিকিটের দামও যাত্রী কমার একটি বড় কারণ। ট্রেনটিতে খুলনা থেকে কলকাতার ভাড়া প্রায় ২ হাজার টাকা৷ অথচ বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে একজন যাত্রীর কলকাতা যেতে খরচ হয় মাত্র ৬০০ টাকা। ফলে স্বাভাবিকভাবেই ট্রেনটি এড়িয়ে চলছেন যাত্রীরা৷ একই সঙ্গে ব্যস্ত যশোর ও বেনাপোল স্টেশনে স্টপেজ না থাকাও যাত্রী সংখ্যা কমার একটি বড় কারণ ৷ ব্রিটিশ আমলেই চালু হয় খুলনা-বেনাপোল-কলকাতা ট্রেন চলাচল৷ ওই সময় ট্রেনগুলিতে প্রতিদিনই সফর করতেন অনেক যাত্রী৷ চাঁদপুর, বরিশাল, ফরিদপুরের যাত্রীরা একই টিকিটে স্টিমারে চেপে খুলনায় এসে ট্রেনে করে কলকাতা যেতেন। ১৯৬৫ সালে ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধের পর খুলনা-কলকাতা ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। তারপর ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে আলোচনার পর ২০১৭ সালের ১৭ নভেম্বর যাত্রা শুরু করে বন্ধন এক্সপ্রেস। তবে গত ৭ মাসে ট্রেনের যাত্রী সংখ্যা বৃদ্ধি না পেয়ে ক্রমাগত কমতে শুরু করেছে। লোকসানের বোঝা টানতে হচ্ছে রেল কর্তৃপক্ষকে। ফলে কতদিন ট্রেনটি চালানো যাবে তা নিয়ে দেখা দিয়েছে সংশয়৷

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')