bangladesh
 18 Oct 18, 01:07 PM
 32             0

বগুড়ায় ৭ প্রকল্পের এখনো কোনও অগ্রগতি নেই।

বগুড়ায় ৭ প্রকল্পের এখনো কোনও অগ্রগতি নেই।

নিউজ ডেস্কঃ বগুড়ার উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুত সাত প্রকল্পের কাজ ৩ বছরেও দৃশ্যমান কোন অগ্রগতি হয়নি। প্রকল্পগুলো এখনও চিঠি চালাচালির মধ্যেই সীমাবদ্ধ রয়েছে। ফলে সরকারের চলতি মেয়াদকালে প্রকল্পগুলো আলোর মুখ দেখবে কি না তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। এ ব্যাপারে স্পষ্ট ধারণা দিতে পারছে না স্থানীয় প্রশাসনও। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে,বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ২০১৫ সালের ১২ নভেম্বর বগুড়ায় দলীয় জনসভায় ৮টি প্রকল্প বাস্তবায়নের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। সেগুলো হল বগুড়ায় অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপন,বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন,বঙ্গবন্ধু সেতু থেকে বগুড়া হয়ে রংপুর পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণ, যমুনা নদীর ভাঙন রোধ ও নাব্য রক্ষায় ড্রেজিং করা,মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে বার্ন ইউনিট স্থাপন,বগুড়া শহর মোহাম্মদ আলী হাসপাতাল থেকে মেডিকেল কলেজ পর্যন্ত যাতায়াতের রাস্তা নির্মাণ,ব্যবসা বাণিজ্য সম্প্রসারণের জন্য রাস্তাঘাট উন্নয়ন এবং জেলার আটটি উপজেলায় স্টেডিয়াম নির্মাণ। দ্বিতীয় মেয়াদে সরকার গঠনের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে এসব বড় উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নের প্রতিশ্রুতি পেয়ে জেলাবাসী উচ্ছ্বসিত হয়ে পড়েন। পরে প্রকল্পগুলো নিয়ে স্থানীয় জেলা প্রশাসন থেকে মন্ত্রণালয়ে চিঠি চালাচালি হয়। সরকারের কয়েকটি দপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের আসা যাওয়াও জেলাবাসীর মনে আশা জাগায়। এ অবস্থায় চলতি বছরের ২৬ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রী আবারও বগুড়া সফর করেন। জেলার আদমদীঘি উপজেলার সান্তাহারের জনসভায় তিনি আগের প্রতিশ্রুতিগুলো বাস্তবায়নের কথা পুনর্ব্যক্ত করেন। এতে জেলাবাসী আবারও আশাবাদী হয়ে উঠেছিলেন। বগুড়া জেলা প্রশাসন,সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর,পানি উন্নয়ন বোর্ড পাউবো এবং রেলওয়ের স্থানীয় দপ্তরগুলোতে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে,প্রধানমন্ত্রী প্রতিশ্রুত ৮টি প্রকল্পের মধ্যে এখন পর্যন্ত শুধু অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠায় জমি অধিগ্রহণের মতো প্রাথমিক কাজ চূড়ান্ত হলেও আদালতে মামলা দায়ের হওয়ায় এই প্রকল্পটি নিয়েও অচলাবস্থা সৃষ্টি হয়েছে।

অন্য ৭টি প্রকল্পের মধ্যে বগুড়া মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটের কাজ শুরু হয়েছে। বাঁকিগুলোর আলোর মুখ দেখেনি। বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার সর্বশেষ অবস্থা সম্পর্কে জেলা প্রশাসনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে,বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন থেকে আইনের খসড়া বিল আকারে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। মতামত জানার জন্য খসড়াটি বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। সিরাজগঞ্জ থেকে বগুড়া পর্যন্ত রেলপথ প্রকল্পের অগ্রগতি সম্পর্কে বগুড়া রেলওয়ের প্রকৌশল বিভাগের একজন কর্মকর্তা জানান,ভারতীয় ঋণে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের পরিকল্পনা রয়েছে। তিনি বলেন,গত বছরের অক্টোবরে ভারতের সঙ্গে যে ১৭টি প্রকল্পের জন্য ৪৫০ কোটি মার্কিন ডলারের ঋণ চুক্তি হয়েছে তাতে বগুড়া সিরাজগঞ্জ রেলপথ প্রকল্পও রয়েছে। প্রকল্পটি অনুমোদনের জন্য একনেক সভায় তোলার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এখনও অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে যমুনা নদীর ভাঙন রোধ ও নাব্য রক্ষায় ড্রেজিং প্রকল্পটি। জেলা প্রশাসনের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী,১৬ কিলোমিটার নদী তীর সংরক্ষণের জন্য এক হাজার ২০০ কোটি টাকা ব্যয় সাপেক্ষ প্রকল্পটি একনেক সভায় উত্থাপনের সিদ্ধান্ত হয়েছে। একই অবস্থা শহরের মোহাম্মদ আলী হাসপাতাল থেকে মেডিকেল কলেজ পর্যন্ত সড়ক এবং নন্দীগ্রাম থেকে তালোড়া ও দুপচাঁচিয়া হয়ে আক্কেলপুর পর্যন্ত ৫৫ কিলোমিটার সড়ক নির্মাণ প্রকল্পটিও। উপজেলা পর্যায়ে স্টেডিয়াম নির্মাণের কাজ কবে শুরু হবে,সে ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কেউই নিশ্চিত করে কিছু বলতে পারছেন না। বগুড়ার বিদায়ী জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ নূরে আলম সিদ্দিকী জানিয়েছেন,প্রধানমন্ত্রী প্রতিশ্রুত সব প্রকল্প নিয়েই কাজ চলছে। তিনি বলেন,অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের কাজে বেশ অগ্রগতি হয়েছে। অন্যগুলোও এগিয়ে নেওয়ার চেষ্টা চলছে।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')