bangladesh
 06 Dec 18, 06:56 AM
 217             0

শীতের শুরুতেই অতিথি পাখির কলকাকলিতে মুখর দেশের দক্ষিণ অঞ্চল॥  

শীতের শুরুতেই অতিথি পাখির কলকাকলিতে মুখর দেশের দক্ষিণ অঞ্চল॥   

মিথুন কুমারঃ প্রতিবছর শীতকাল এলেই খুলনাসহ দক্ষিণ অঞ্চলের বিভিন্ন স্থানে অতিথি পাখি দেখা যায়। জলাশয়, বিল, হাওর, পুকুর ভরে যায় নানা রংবেরঙের নাম না জানা পাখিতে আসে। আদর করে আমরা সেগুলোকে বলি অতিথি পাখি বলে থাকি। নাম অতিথি হলেও এই পাখিরা ঝাঁকে ঝাঁকে আমাদের দেশে হাজির হয় নিজেদের জীবন বাঁচাতে। তাই তো অতিথি পাখির কলকাকলিতে মুখর হয়ে উঠেছে প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি বাংলাদেশ। সাইবেরিয়াসহ সংলগ্ন এলাকার আবহাওয়ায় এই সময়ে শুরু হয় তুষারঝড়ের দাপট। হিমশীতল সেই অসহিষ্ণু পরিবেশ থেকে রক্ষা পেতে অতিথি পাখিরা ছড়িয়ে পড়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিল-ঝিল-হাওরে। যাদের একটা অংশ প্রতি বছর অতিথি হয়ে আসে বাংলাদেশে এবং শীত মৌসুম শেষে স্বদেশের দিকে পাড়ি দেয়। প্রতি বছর বাংলাদেশে লক্ষ লক্ষ পাখির আগমন ঘটে। বিশেষ করে দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলে আমন ধান মৌসুমে খাদ্যের সন্ধানে এ এলাকায় তারা আসতে শুরু করে। খুলনা, সাতক্ষীরা, বাগেরহাটসহ বিভিন্ন এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, খুলনার ডুমুরিয়া, রূপসা, তেরখাদা, কয়রা, পাইকগাছা, দাকোপ, বটিয়াঘাটা, সাতক্ষীরার শ্যামনগর, আশাশুনি, তালা, বাগেরহাটের শরণখোলা, মোরেলগঞ্জ, রামপাল, মংলাসহ বিভিন্ন এলাকায় অতিথি পাখির আগমন ঘটে। অতিথি পাখি বাংলাদেশের জীববৈচিত্র্যকে সমৃদ্ধ করছে।

পরিবেশ সংরক্ষণেও এই অতিথি পাখিদের অবদান অনন্য। দেশে বিল-ঝিল-নদ-নদীসহ জলাশয়ের সংখ্যা হ্রাস পাওয়ায় অতিথি পাখির আগমন যেমন হ্রাস পাচ্ছে তেমন দেশীয় পাখির জন্যও টিকে থাকা সমস্যা হয়ে দাঁড়াচ্ছে। পাখি শিকার আইনত দণ্ডনীয় হলেও একশ্রেণির লোভী মানুষ সে অপরাধে প্রতিদিনই নিজেদের যুক্ত করছে। বিভিন্ন এলাকায় নির্বিচারে অতিথি পাখি নিধন চলে এই শীত মৌসুমে। পাখিগুলোর মধ্যে রয়েছে, ডংকুর, আলতি, ঢেঁকে, হাঁসপাখি, নল পাখি, চেঁড়ে ইত্যাদি। এই অতিথি পাখি গুলো আমাদের উপকারী প্রাণী। বিশেষ করে পরিবেশ রক্ষার পাখিদের একটা বড় ভূমিকা রয়েছে। এ প্রাণিগুলো রক্ষার দায়িত্ব সমাজের সকলের। পাখি হত্যাযজ্ঞ বন্ধ করতে হবে। এর যথাযথ আইন রয়েছে, সেটি বাস্তবায়ন প্রয়োজন। এ অতিথি পাখিরা শুধু ধানের ক্ষতি করে না। তারা ধান গাছের ক্ষতিকর পোকা-মাকড় খেয়ে বিনাশ করে। আবার শীত কমার সঙ্গে সঙ্গে অর্থাৎ আমন ধান কাটা শেষ হলেই অতিথি পাখিরা তারা তাদের আপন নীড়ে ফিরতে শুরু করে। তারই ফাঁক গলিয়ে দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় এক শ্রেণীর অসাধু পাখি শিকারী রাতে বিভিন্ন কৌশলে খাল, বিলে, হওয়াড় ও জলাশয় ফাঁদ, জাল, খাঁচা পেতে ও বিভিন্ন চেতনানাশক ওষুধ ব্যবহার করে এ সকল অতিথি পাখি ধরা বা নিধনযোগ্য চালাতে শুরু করেছে। এসব পাখি শিকার বন্ধের জন্য পরিবেশবাদী সংগঠন শিকারের বিরুদ্ধে দাঁড়াতে হবে। যে যে এলাকায় অতিথি পাখি আসে, সে এলাকায় অতিথি পাখি নিধন সম্বন্ধে বিভিন্ন সভা করা যেতে পারে।অতিথি পাখি শিকার বন্ধে প্রচারণা চালানো যেতে পারে। এলাকায় যারা পাখি শিকার করে, তাদের নামের তালিকা প্রস্তুত করে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে দিলে তারা এ ব্যাপারে সহযোগিতা করতে পারে। সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে, সাধারণ জনগণের সচেতনতাই বন্ধ করতে পারে অতিথি পাখি শিকার।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')