business
 22 Jun 17, 11:47 PM
 217             0

ঈদ উপলক্ষে নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধি।।

ঈদ উপলক্ষে নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধি।।

নিউজ ডেস্কঃ রমজানের আগে প্রতি কেজি আপেল বিক্রি হয়েছে ১৩০ থেকে ১৪০ টাকায়। এখন এক কেজি আপেল বিক্রি হচ্ছে ১৭০ থেকে ১৮০ টাকায়। রমজান শুরুর আগে এককেজি ন্যাশপতি বিক্রি হয়েছে ১২০ থেকে ১৪০ টাকায়,এখন এক কেজি ন্যাশপতি বিক্রি হচ্ছে ২৪০ থেকে আড়াই শ’ টাকায়। প্রতি কেজি আঙ্গুর বিক্রি হয়েছে ২০-২৩০ টাকায়,এখন বিক্রি হচ্ছে ৩০০ থেকে ৩২০ টাকা। এক কেজি আনার বিক্রি হয়েছে ২২০ থেকে ২৩০ টাকায়,এখন বিক্রি হচ্ছে ৩০০ টাকায়। প্রতি কেজি আম বিক্রি হয়েছে ৫০ থেকে ৬০ টাকায়। এখন বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ১০০ টাকায়। বড়ই খেজুর বিক্রি হয়েছে প্রতি কেজি ১৬০ থেকে ১৭০ টাকায়, এখন বিক্রি হচ্ছে আড়াই শ’ টাকা। সব ধরনের খেজুরে কেজি প্রতি বেড়েছে ৭০ ৮০ টাকা।

রমজান উপলক্ষে সব ধরনের ফলের দাম এক দফা বেড়েছিল। এবার ঈদ সামনে রেখে আরেক দফা বাড়ানো হয়েছে ফলের দাম। পাশ্ববর্তী দেশ ভারতেও রমজান উপলক্ষে ফলের দাম কম। কিন্তু একমাত্র বাংলাদেশেই রমজানে সব ফলের দাম বাড়ে। আক্ষেপের সাথে কথাগুলো বলছিলেন নগরীর প্রধান ফলের বাজার ফলপট্টির একজন ব্যবসায়ী। নাম না প্রকাশের শর্তে ওই ব্যবসায়ী বলেন,আমদানীকারকরা কোন ফল কি দামে কিনেছে,সেখান থেকে আড়তদাররা কি দামে কিনেছে, আড়তদারদের কাছ থেকে খুঁচড়া ব্যবসায়ীরা কি দামে কিনেছে,আবার খুঁচড়া দোকানিরা কি দামে ভোক্তার কাছে বিক্রি করছে- এগুলো দেখার কেউ নেই। সরকারের কোন সংস্থা এসব বিষয়ে তদারকি করেন না। তারা যদিও আমদানীকারক,মধ্যসত্ত্বভোগী এবং খুঁচড়া বিক্রেতার ক্যাশ মেমো খতিয়ে দেখতেন, তারা যদি তদারকি করতেন,তাহলে এভাবে লাফিয়ে লাফিয়ে পন্যের দাম বাড়তো না।

শুধু ফলের বাজার নয়,ঈদ সামনে রেখে আরেক দফা বেড়েছে সব ধরনের নিত্য পন্যের দাম। মোটা বুলেট চাল পাইকরী কেজি প্রতি ৪৫ এবং খুচড়া ৫০টাকা, আটাশ বালাম খুঁচড়া বাজারে প্রতি কেজি ৫২ টাকা,ভারতীয় স্বর্না (চিকন চাল) চাল পাইকরী বাজারে প্রতি কেজি ৪৬ টাকা ও খুঁচড়া বাজারে ৪৮ থেকে ৪৯ টাকা, আটাশ বালাম (চিকন) প্রতি কেজি পাইকরী সাড়ে ৪৬ টাকা ও খুঁচড়া বাজারে ৪৮ থেকে ৪৯ টাকা,মিনিকেট (দাদা) পাইকরী বাজারে ৫৩ থেকে ৫৪ টাকা এবং খুঁচড়া বাজারে বিক্রি হচ্ছে ৫৮ টাকা কেজি দরে। নগরীর সাগরদী বাজারের পাইকরী দোকান ইসলাম স্টোরের মো. সাদি চালের দর নিশ্চিত করেছেন।

চাল ছাড়াও গত এক সপ্তাহে প্রতি কেজি চিনিতে ৫ টাকা বেড়ে এখন খুচড়া বাজারে বিক্রি হচ্ছে ৭৪ টাকা দরে। প্রতি কেজি সয়াবিন তেলেও ২টাকা করে দাম বেড়েছে বলে জানিয়েছেন নগরীর খান সড়কের মুদী দোকানী মো. রামিম। ঈদে রসনা বিলাসীদের অন্যতম উপকরন গরম মসলার দামও হু হু করে বেড়েছে। নগরীর প্রধান বানিজ্যিক কেন্দ্র বাজার রোডের বরিশাল মসলা হাউজের সত্ত্বাধিকারী মোল্লা মাইনুদ্দিন খোকন জানান,জিরা প্রতি কেজিতে ৩০ টাকা বেড়ে এখন বিক্রি হচ্ছে ৩৫৫ টাকায়,দারচিনি ১০ টাকা বেড়ে ২২০ টাকায়,এলাচী কেজিতে ২০ থেকে ৬০ বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ১৫০০ টাকায়,কিচমিচ প্রতি কেজিতে ৩০০ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ২৭০০ টাকায়,আলু বোখারার দামও প্রতি কেজিতে ৩০ থেকে ৪০ টাকা বেড়ে এখন বিক্রি হচ্ছে ৪৪০ টাকায়।

ঈদের প্রভাব পড়েছে মাছের বাজারেও। সাইজ ভেদে গত ৪-৫ দিনে প্রতি কেজি ইলিশে দুই শ’ থেকে আড়াই শ’ টাকা দাম বেড়েছে বলে জানিয়েছেন নগরীর চৌমাথা বাজারের মাছ ব্যবসায়ী নুরুল ইসলাম সিকদার। ইলিশ ছাড়াও দেশীয় প্রজাতির পোয়া,বেলে,পাবদা ও চিংড়ি সহ সব ধরনের মাছের দাম কেজি প্রতি এক থেকে দুই শ’ টাকা বেড়েছে বলে জানিয়েছেন ক্রেতা মাছুম খন্দকার।
ঈদ সামনে রেখে বেড়েছে কাঁচা মরিচের দামও। প্রতি কেজিতে ৪০ টাকা বেড়ে গতকাল বরিশালের বাজারে কাঁচা মরিচ বিক্রি হয়েছে ১২০টাকা দরে। এছাড়া শশা, লেবু সহ,বিভিন্ন ধরনের শাক-সবজির দামও ঈদে আরেক দফা বেড়েছে। বরিশালের জেলা প্রশাসক ড. গাজী মো. সাইফুজ্জামান বলেন,রোজার শুরুতে এবং ঈদের আগে ক্রেতার চাপ বেড়ে যায়। এ কারনে পণ্যের দাম একটু বাড়ে। এটা ক্রেতারাও হাঁসি মুখে মেনে নেয়। মূল্য বৃদ্ধি স্বাভাবিক। জেলা প্রশাসক আরো বলেন,প্রশাসনের নজরদারী অব্যাহত রয়েছে। কেউ অস্বাভাবিকভাবে পণ্য মূল্য বৃদ্ধির চেষ্টা করলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')