bangladesh
 11 Jun 18, 02:20 PM
 174             0

টানা বর্ষণে রাঙামাটিতে ফের পাহাড় ধস, ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় সতর্ক করতে মাইকিং।।  

টানা বর্ষণে রাঙামাটিতে ফের পাহাড় ধস, ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় সতর্ক করতে মাইকিং।।   

নিউজ ডেস্কঃ রাঙামাটিতে টানা বর্ষণে ফের পাহাড় ধসের ঘটনা ঘটেছে। ফলে সাময়িকভাবে বন্ধ হয়ে যায় রাঙামাটি-চট্টগ্রাম সড়কে যানবাহন চলাচল। ধসে পড়ে বেশকিছু বাড়ি ঘর। তবে এখনো পর্যন্ত কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। রাঙামাটি জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ৬টি আশ্রয় কেন্দ্র খুঁলে দেওয়া হয়েছে। মাইকিং করে সড়ে যেতে বলা হচ্ছে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকাগুলো বসবাসরত মানুষদের। অন্যদিকে গতকাল রবিবার মধ্যরাত থেকে আজ সোমবার বিকাল পর্যন্ত রাঙামাটি শহরের বিভিন্ন ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা পরিদর্শন করেছেন রাঙামাটি জেলা প্রশাসক একে এম মামুনুর রশিদ। এসময় তিনি পাহাড়ে পাদদেশে বসবাসরত মানুষকে আশ্রয় কেন্দ্রে চলে যাওয়ার নিদের্শ দেন। এসময় রাঙামাটি শহরের শিমুল তলী এলাকার ৬টি পরিবারের ১৬জন মানুষ বাংলাদেশ টেলিভিশনের রাঙামাটি সেন্টারে ও রাঙাপানি এলাকার ৩টি পারিবারে ১০জন মানুষ মানঘর ভাবনাকেন্দ্র আশ্রয়ন নেয়। এদিকে রাঙামাটিতে পাহাড় ধসের আশংকাগ্রস্থ মানুষদের জন্য আশ্রয় কেন্দ্রের পাশাপাশি শহরের ঝুঁকিপূর্ণ এলাকার আশেপাশে নিরাপদস্থানে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাবু তৈরি করা হচ্ছে। যাতে মানুষ সহজে নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে পারে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে,গত তিন ধরে এখন পর্যন্ত টানা বর্ষণে রাঙামাটি শহরের ১২৮টি স্থানে ছোট ছোট পাহাড় ধসের ঘটনা ঘটেছে। এমধ্যে ৫টি স্থানে সড়কে ফাটল দেখা দিয়েছে। আচড়ে পাড়ছে সড়কে পাথুরে পাটি। উপরে পড়েছে গাছপালা। ভেঙ্গে গেছে বিভিন্ন বসতবাড়ি। শহরের রাঙামাটি চেম্বার অব কর্মাস ভবনের পাশ্ববর্তী সড়ক,সিনিয়র মাদ্রাসার পাশ্ববর্তী দেয়াল ও চম্পকনগর এলাকায় পরিবার পরিকল্পনা অফিসের দেয়াল ধসে পড়েছে। চট্টগ্রাম-রাঙামাটি শহরের শালবাগান এলাকায় বৈদ্যুতিক খুঁটি পড়ে সাময়কিভাবে সড়ক যোগাযোগ বিছিন্ন হয়ে যায়। একই সাথে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় বিদ্যুৎ সংযোগও। রাঙামাটি বিদ্যুৎ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী সবুজ কান্তি মজুমদার জানায়,টানা বর্ষণে বিদ্যুৎ খুঁটি উপরে পরে সাময়কিভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ বিছিন্ন হয়ে যায়। তবে কাজ চলছে। দ্রুত এ সমস্যা সমাধাণ হয়ে যাবে।

রাঙামাটি সড়ক জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. এমদাদ হোসেন জানান,টানা তীব্র বৃষ্টিতে রাঙামাটি-চট্টগ্রাম সড়কের বিভিন্নস্থানে ভেঙ্গে গেছে। পাহাড় থেকে মাটি সড়কে জমা হয়েছে। এছাড়া রাঙামাটি-চট্টগ্রাম-রাণীরহাট সড়কে ৩টি স্থান পানির নিচে তলীয়ে যায়। এসময় গতকাল রোববার রাত ১২ থেকে আজ সোমবার সকাল ১১টা পর্যন্ত রাঙামাটি-চট্টগ্রাম সড়কে সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পরে সড়ক থেকে পানি সড়ে গেলে যানচলাচল স্বাভাবিক হয়। শহরের কোট বিল্ডিং, ঘাগড়া, সাপছড়ি, রাঙাপানি,পুলিশ লাইন এলাকায় সড়কে কিছু কিছু অংশ ভেঙ্গে গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় সড়ক বিভাগের লোকজন কাজ শুরু করেছে। তবে বৃষ্টি কারণে কাজ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। রাঙামাটি ফায়ার সার্ভিসের উপ-পরিচালক দিদরুল আলম জানান, পাহাড় ধসের আশংকায় রাঙামাটি ফায়ার সার্ভিসের একটি দল মাঠে তৎপর রয়েছে। শহরের চম্পকনগর এলাকায় দেয়াল ধসে পড়ায় পাশ্ববর্তী স্থানীয়দের নিরাপত্তা স্থানে সড়িয়ে নেওয়া হয়েছে।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')