bangladesh
 31 May 18, 05:07 PM
 143             0

ডুমুরিয়ায় মৎস্যজীবী সুকুমার হত্যা মামলায় সাত আসামির যাবজ্জীবন কারাদণ্ড  

ডুমুরিয়ায় মৎস্যজীবী সুকুমার হত্যা মামলায় সাত আসামির যাবজ্জীবন কারাদণ্ড   

নিউজ ডেস্কঃ খুলনার ডুমুরিয়া থানায় দায়ের হওয়া মৎস্যজীবী সুকুমার বিশ্বাস হত্যা মামলায় আদালত সাত আসামিকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সাথে তাদের প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড, অনাদায়ে আরও দু’মাস করে সশ্রম কারাবাসের আদেশ দেন। খুলনার বিশেষ দায়রা জজ ও বিভাগীয় স্পেশাল জজ এস এম আবদস ছালাম আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে এ রায় ঘোষণা করেছেন। দণ্ডিতরা হলেন প্রদীপ কুমার সাহা ওরফে প্রদীপ সাহা, সুভাষ বিশ্বাস, বিকাশ বিশ্বাস, কার্তিক বিশ্বাস, মতিলাল শিকদার, রমেশ বিশ্বাস এবং তপন শিকদার। এদের মধ্যে প্রদীপ উপজেলার গেড়–লি গ্রামের এবং অন্য ছয় জন উত্তর বিল পাবলা গ্রামের অধিবাসী। রায় ঘোষণার সময় প্রদীপ এবং সুভাষ আদালতের কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন। তবে অন্য পাঁচ জন পলাতক রয়েছে।

সূত্র জানায়, উপজেলার উত্তর বিল পাবলা এলাকায় অবস্থিত ১শ ৬৬ একর আয়তনের একটি জলমহল নিয়ে মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি’র দু’পক্ষের মধ্যে বিরোধ চলছিল। ২০০৬ সালের ১৮ জুলাই রাতে নিহত সুকুমারসহ বেশ কয়েকজন উত্তর বিল পাবলা এলাকার জনৈক মুকুন্দ বিশ্বাসের ঘেরের সামনে একটি উঠানে বসে জলমাহল সংক্রান্ত ব্যাপারে আলাপ করছিলেন। সে সময় অপর পক্ষের লোকেরা পিস্তল, রাম দা, লাঠিসহ তাদের ঘিরে ফেলে সুকুমারের গলায় গুলি করে। রবিন নামে একজন তাকে বাঁচানোর চেষ্টা করলে আততায়ীরা তার পায়ে গুলি করে। সে সময় সন্ত্রাসীরা অন্যদের এলোপাতাড়ি পিটিয়ে আহত করে। সুকুমারের মৃত্যু নিশ্চিত করে তারা দু’ ভাগে বিভক্ত হয়ে ওই বাড়ীর পূর্ব এবং পশ্চিম দিক থেকে চলে যায়। পরদিন নিহতের মামাতো ভাই ভরত সরদার ১২ জনের নাম উল্লেখসহ ১০ থেকে ১২ জন অজ্ঞাত আসামীর বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ২০০৭ সালের ২১ জানুয়ারি ২১ জন আসামীর বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। চার্জশিটভুক্ত ২৭ জন সাক্ষীর মধ্যে ২৪ জন আদালতের বিভিন্ন কার্যদিবসে সাক্ষ্য দিয়েছেন। এই মামলার ১৪ জন আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তারা খালাস পেয়েছেন।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')