bangladesh
 02 Jun 18, 09:16 AM
 15627             0

“কোন কথা শুনবো না, দিস ইজ মাই ফাইনাল কথা” ।। মন্ত্রী নারায়ন চন্দ্র চন্দ ( ভিডিও সহ )

“কোন কথা শুনবো না, দিস ইজ মাই ফাইনাল কথা” ।। মন্ত্রী নারায়ন চন্দ্র চন্দ ( ভিডিও সহ )

নিউজ ডেস্কঃ জনসম্মুখে মেজাজ হারিয়ে ফেললেন মৎস্য ও প্রাণীসম্পদ মন্ত্রী নারায়ন চন্দ্র চন্দ । প্রকাশ্যে গালিগালাজ করলেন সরকারি কর্মকর্তা, পুলিশ ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের । মন্ত্রী নারায়ন চন্দ্রের স্বভাববিরুদ্ধ আকস্মিক এমন উত্তেজনায় হতচকিত উপস্থিত সকলে । মন্ত্রীর এ রূঢ় আচরণের দৃশ্য ক্যামেরা বন্দি করে ফেইসবুকসহ বিভিন্ন সোসাল মিডিয়াতে প্রচার করেছেন অনেকে । মন্ত্রীর কথা "কোন কথা শুনবো না, দিস ইজ মাই ফাইনাল কথা" আজ সকলের মুখে মুখে । এ সময় তিনি উপস্থিত সরকারি কর্মকর্তাদের ঘুষখোর বলেও গালিগালাজ করেন । যা ইতিমধ্যে খুলনা সহ সারা দেশে ভাইরাল হয়েছে । গত বৃহস্পতিবার সকালে খুলনার ডুমুরিয়া বাজার সংলগ্ন নদী খনন দেখতে গিয়ে এ ঘটনাটি ঘটিয়েছেন মন্ত্রী নারায়ন চন্দ্র চন্দ ।

উল্লেখ্য প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী প্রায় ৭৬ কোটি টাকা ব্যায়ে ডুমুরিয়ার সালতা ও ভদ্রা নদীর খনন কাজ চলছে । ডুমুরিয়া বাজার সংলগ্ন এ নদীটি সম্পুর্ণরুপে ভরাট হয়ে যাওয়ায় এখানে অনেকেই বসতি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান স্থাপন করেছেন । বর্তমানে এ জমির বাজার মূল্য অনেক । এ কারণেই নদী পুনঃখননে দেখা দিচ্ছে নানান বিপত্তি। মূলত নদীটি ডুমুরিয়া সদর এবং শোভনা ইউনিয়নের সীমানা দিয়ে বয়ে গেছে । সরকারি নিয়ম অনুযায়ী দুই মৌজার মাঝখান দিয়েই নদী পুনঃখননের কথা থাকলেও অনেকাংশে তা মানা হচ্ছেনা । শোভনা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কাজে নিয়জিত ঠিকাদারকে বিভিন্ন প্রকার ভয়-ভীতি ও হুমকি দিয়ে ডুমুরিয়া বাজারের দিকে নদীটিকে ঠেলে দিচ্ছেন বলে অভিযোগ সদর ইউনিয়ন চেয়ারম্যানের । আর দুই চেয়ারম্যানের মতবিরোধের কারণেই নদী খননের কাজ বাধাগ্রস্থ হচ্ছে ।

বিষয়টি সরজমিনে জানতে গত বৃহস্পতিবার ঘটনাস্থলে যান মন্ত্রী নারায়ন চন্দ্র চন্দ । সেখানে উপস্থিত ছিলেন পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রোকৌশলী মোহম্মদ শরিফুল ইসলাম , স্থানীয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহনাজ বেগম , পুলিশ কর্মকর্তা হাবিল হোসেন, ডুমুরিয়া সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান গাজী হুমায়ন কবির বুলু এবং শোভনা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সুরঞ্জিত বৈদ্য সহ কয়েকশত স্থানীয় জনগন। মন্ত্রীর উপস্থিতিতে ডুমুরিয়া সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান অভিযোগ করতে থাকেন এখানে এলাইনমেন্ট অনুযায়ী নদী খনন হচ্ছেনা । শোভনা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সন্ত্রাসী কায়দায় নদীটিকে ডূমুরিয়া বাজারের দিকে ঠেলে দিচ্ছে । সরকারী নিয়ম মেনে নদী খনন হচ্ছেনা এতে বাজারের ব্যবসায়ীরা ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন । কিন্তু চেয়ারম্যানের বক্তব্য মাঝপথে থামিয়ে দিয়ে তেলে বেগুনে জ্বলে উঠেন মন্ত্রী । এ সময় ডুমুরিয়া সদর চেয়ারম্যানের উদ্দেশ্যে মন্ত্রী ধমকের সুরে বলেন “তোমার কোন কথা শোনা হবেনা, তুমি এখানে আসবে না, তুমি এখান থেকে যাও, আমি কোন কথা শুনবো না - দিস ইজ ফাইনাল ” । এ সময় তিনি পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রোকৌশলী মোহম্মদ শরিফুল ইসলামকে উদ্দেশ্য করে বলেন “ঘুষ খেয়েছেন ” ।

 

 

মন্ত্রীর এ আকস্মিক উত্তেজনায় হতচকিত হয়ে যান উপস্থিত সকলেই । পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী থেকে শুরু করে জনপ্রতিনিধিসহ সকলেই কিংকর্তব্যবিমুড় হয়ে পড়েন । মন্ত্রীও উত্তেজনায় থরথর করে কাপতে থাকেন । উপস্থিত সকলের প্রশ্ন মন্ত্রী প্রকাশ্য জনসম্মুখে এমন আচরণ কেন করলেন ! তার কোন মতামত বা নির্দেশনা থাকলে তিনি বাস্তবায়নকারী প্রতিষ্ঠান পানি উন্নয়ন বোর্ড ও ঠিকাদারকে ডেকে পরামর্শ দিতে পারতেন । কিন্তু তা না করে ঘটনা স্থলে উপস্থিত হয়ে কাউকে কথা বলতে না দিয়ে নিজের মতামত চাপিয়ে দিতে কেন চাইলেন । স্থানীয় মানুষের সমস্যা নিয়ে ইউপি চেয়ারম্যান কথা বলবেন এটাই স্বাভাবিক । কেন তিনি সদর ইউপি চেয়ারম্যানকে কোন কথাই বলতে দিলেন না । যদি জনগনকে কথা বলতে নাই দিবেন তবে ঘটনাস্থলেই বা গেলেন কেন । বিষয়টি খতিয়ে দেখার দাবি জানিয়েছেন অনেকেই ।

উমুরিয়া সদর ইউপি চেয়ারম্যান গাজী হুমায়ন কবির বুলু অভিযোগ করেছেন, শোভনা ইউপি চেয়ারম্যান সরঞ্জিত বৈদ্যর সাথে ব্যক্তিগত সখ্যতার কারণেই মন্ত্রী এমন আচরণ করেছেন । হত্যা, গুম, চাঁদাবাজিসহ কয়েকডজন মামলার আসামী কুখ্যাত সন্ত্রাসী সুরঞ্জিতের সাথে মন্ত্রীর নিবিড় সম্পর্ক দীর্ঘদিনের । গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সুরঞ্জিতকে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন দেওয়ার চেষ্টা করেন মন্ত্রী । কিন্তু সুরঞ্জিতের অতীত সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের কারণে গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে আওয়ামীলীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা সুরঞ্জিতের দলীয় মনোয়ন বাতিল করেন । তার জায়গায় মনোনয়ন পান আওয়ামীলীগের ত্যাগী নেতা ঐ ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সরদার আব্দুল গনিকে । কিন্তু মন্ত্রী নিজের স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য প্রশাসনের প্রভাব খাটিয়ে নির্বাচনে কারচুপির মাধ্যমে নৌকাকে ঠকিয়ে সুরঞ্জিতকে চেয়ারম্যান করেন । যা নিয়ে শোভনা এলাকায় একাধিক হামলা-মামলার ঘটনা ঘটে । কিন্তু মন্ত্রীর দাপটে সবকিছু ধামাচাপা পড়ে যায় ।

উল্লেখ্য পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্ত্বাবধায়নে ডুমুরিয়ার ভদ্রা ও সালতা নদীটি খনন করা হচ্ছে । একসময় এ নদী দুটি ছিল খরস্রোতা । এ নদী দুটির উপর নির্ভর করে ডুমুরিয়া বাজার গড়ে উঠেছিল । ডুমুরিয়া থেকে নৌকা ও ট্রলার যোগে উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চল গুলোর সাথে এ নদীর মাধম্যেই যাতায়াত ও পণ্য পরিবহন হত । এ নদীর দুইপাশে বেশ কয়েকটি জেলে গ্রাম তাদের জীবন জীবিকাও চলত এ নদীতে মাছ ধরে । বর্ষা মৌসুমে ইলিশ ধরার ধুম পড়ত এ নদীতে । কিন্তু গত দুই যুগ ধরে এ নদী দুটি ভরাট হয়ে যাওয়ায় সবকিছুই এখন স্মৃতি । প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী নদী দুটিকে খনন করে স্বাভাবিক ছন্দে ফিরিয়ে আনার প্রয়াস নেওয়া হয়েছে ।

Comments

sumon

2018-06-03 04:21:59 AM


ডুমুরিয়া তে এখন নারায়ণ চন্দ্র চন্দ নিজেই সন্ত্রাসী জন্মদাতা ও পালনকর্তা। সেইটা প্রমান রাখে সুরঞ্জন বৈধ সঙ্গে তার সখ্যতা এবং গত নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী বানিয়ে সুরঞ্জন বৈদ্যকে চেয়ারম্যান বানানো।নারায়ণ বাবু একজন দুর্নীতিবাজ মন্ত্রী। তিনি কি করে বলেন অন্য সরকারি কর্মকর্তাকে ঘুষ খাইছো। সরকারি কোটি টাকা নিয়ে তিনি দুর্নীতি করে বাড়ী গাড়ী সম্পদ করেছেন ।তার বৌমা একই সঙ্গে দুই স্কুলে চাকরি করেছে।নারায়ণ বাবুর কলকাতায় সল্টলেকে বাড়ি আছে।তার তো চরিত্রও ভালনা শুনেছি ছাত্রলীগের কোন নেত্রীর সঙ্গে তার একটু ইটিশ্-পিটিশ আছে।শুনেছি একবার ওই ছাত্রলীগ নেত্রী নারান বাবুর ডুমুরিয়ার বাড়িতে ছোট ছোট জামা কাপড় পড়ে বসে থাকতে দেখে নারায়ণ বাবুর স্ত্রী এবং তখন বাবুর স্ত্রী বাড়ি থেকে বের হয়ে এসে গেটের সামনে বসে মাথায় হাত দিয়ে বলে, আমার সব শেষ হয়ে গেল রে.......

sakib

2018-06-03 04:00:27 AM


মন্ত্রী নারান বাবু একটা শীর্ষ সন্ত্রাসী সুরঞ্জন বৈদ্যের পক্ষ নিয়ে মোটেও ভাল কাজ করেনি। ডুমুরিয়া হুমায়ুন কবির বুলুর মতো একজন জনপ্রিয় চেয়ারম্যানকে তিনি হেয় প্রতিপন্ন করেছেন।জনসম্মুখে তাকে ঘোর অপমান করা হয়েছে।নারায়ণ বাবু একজন জনপ্রতিনিধি হয়ে আরেকজন জনপ্রতিনিধিকে এমনভাবে জন সম্মুখে কি করে অপদস্থ করে?আসলে নারায়ণ বাবু কি সন্ত্রাসী সুরঞ্জন বৈদ্য কে খুশি করার জন্য এগুলো করছে ।নারান বাবু কি তাকে খুশী করে, আবার ডুমুরিয়ার বুকের সন্ত্রাসী জন্ম দিতে চায় নতুন করে।সুরঞ্জন বৈধ কে দিয়ে কি আর একটা মৃণাল তৈরী করতে চায় এবং পরবর্তী নির্বাচনে সুরঞ্জন বৈধকে দিয়ে তার রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিল করতে চায়।শুনেছি সুরঞ্জন বৈদ্য নামে ডজনখানেক মামলা রয়েছে গুম খুন চাঁদাবাজি সন্ত্রাসী ইত্যাদি।আগের নির্বাচনে সুরঞ্জন বৈদ্যকে চেয়ারম্যান নির্বাচন করার জন্য জননেত্রী শেখ হাসিনা নৌকা প্রতীক দিই নাই।তারপরেও নারান বাবু তার ব্যক্তিগত ক্ষমতা প্রয়োগ করে সুরঞ্জন বৈধ একজন সন্ত্রাসীকে চেয়ারম্যান বানিয়েছে। যা ডুমুরিয়া বাসীর ধিক্কার জানিয়েছে।

Wahid apon

2018-06-02 04:53:26 PM


প্রথমে ঢাকায় ৩ টাকার ডিম বিক্রী,তারপর ছাগল মরার কারনে সাংবাদিক জেলে, তারপর জনসম্মুক্ষে সরকারী চাকরিজীবী অপদস্থ করা ...যাস্ট হতাশ

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')