bangladesh
 28 Nov 18, 07:37 AM
 42             0

দীর্ঘ একযুগ পর দেশের বৃহত্তম স্থলবন্দর বেনাপোলের প্রধান সড়ক জিটি রোড এখন সম্পূর্ন যানজটমুক্ত॥

দীর্ঘ একযুগ পর দেশের বৃহত্তম স্থলবন্দর বেনাপোলের প্রধান সড়ক জিটি রোড এখন সম্পূর্ন যানজটমুক্ত॥

নিউজ ডেস্কঃ নিত্য ভোগান্তি ১০ হাজার যাত্রীর,৫০০ ট্রাক ও চালকের,শতাধিক বাসযাত্রীর,আমদানি রপ্তানি সম্পৃক্তের,প্রাইভেট কার যাত্রীর,ইজিবাইক,ভ্যান চালকের। বিশৃঙ্খলা,কয়েক গ্রামের সাধারন মানুষ জিম্মি। স্কুল, কলেজের কোমলমতি ছাত্র, ছাত্রীদের সারাক্ষণ দুর্ঘটনার ভয়। অনিয়ম যেখানে নিয়ম। বছরময় লেগে থাকা কাজটা সহজ নয়। অনেক উদ্দোগ, একবার না পারিলে দেখ শতবার ও অব্যাহত চলা। বাইপাস রোড,লিংকরোড চালু,বন্দরের গেট কন্ট্রোল,খালাসের সময়বৃদ্ধি,জনবল বৃদ্ধি হলো। তবু সাফল্য যেন আসে না। কমছে বাণিজ্য ও রাজস্ব। অপ্রতিরোধ্য যানজটে বাধাগ্রস্ত সামগ্রিক বাণিজ্য। বাড়ছে সংকট আপদ। পাল্লা দিয়ে কমছে বাণিজ্য ও রাজস্ব। পিছিয়ে পড়ছে বেনাপোল। অবশেষে দীর্ঘ এক যুগ পর বেনাপোল কাস্টমস কমিশনার ও বন্দর ব্যবহারকারী বিভিন্ন সংগঠনোর যৌথ সহযোগিতায় দেশের বৃহত্তম স্থলবন্দর বেনাপোলকে যানজট মুক্ত করা হয়েছে।

মোগল সম্রাট শেরশাহর প্রতিষ্ঠিত জিটি রোড এখন সম্পূর্ন যানজটমুক্ত। অর্থমন্ত্রীর নির্দেশ গঠিত পরামর্শক কমিটির উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তা,ব্যবসায়ী ও পরিবহন শ্রমিকদের বৈঠকের পরপরই। বেনাপোল কাস্টমস কমিশনার বেলাল হোসেন চৌধুরীর নেতৃত্বে শুরু হয় যানজট মুক্ত অভিযান। ভ্যান রিকশা ও ইজিবাইক চলাচলে বিশেষ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। প্রধান সড়কে অতিরিক্ত আনসার সদস্যরা নিয়োজিত করে ইজিবাইক নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে। বাইপাস সড়ক দিয়ে ইজিবাইক ও ভ্যান চলাচলের ব্যবস্থা করা হয়েছে। যশোর, বেনাপোল, কলকাতা মহাসড়কের বন্দর এলাকায় যানজট মুক্ত করতে অবশেষে এই ব্যবস্থা নিলেন কমিশনার মোহাম্মদ বেলাল হোসাইন চৌধুরী। প্রথম দিনেই প্রধান সড়ক দিয়ে বাস ট্রাকসহ দূরপাল্লার পরিবহন চলাচল হয়েছে স্বাভাবিক। নেই কোনো যান ও পণ্যজট। ইতিপূর্বে যানজটের কারণে ভারত থেকে আসা পণ্যবোঝাই ট্রাক ঘণ্টার পর ঘণ্টা আটকে থাকত বন্দর এলাকায়। বন্দরের প্রধান সড়ক থেকে অন্যত্র সরিয়ে নেওয়া হয়েছে ট্রাক চেসিস। বেনাপোল বন্দরের অব্যবস্থাপনার কারণে সৃষ্ট যানজটমুক্ত হওয়ায় ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষ ফিরে পেয়েছে স্বস্তি।

ভারতের রপ্তানিকারকরা তাদের পণ্যবোঝাই ট্রাক ছাড়ার পর পেট্রাপোল বন্দরে আসার পর থেকেই বাংলাদেশি আমদানিকারকদের কাছ থেকে প্রতিদিন ডেমারেজ বাবদ ট্রাকপ্রতি আড়াই হাজার রুপি আদায় করে থাকেন। এ ডেমারেজ দিতে হয় ১৫ থেকে ২০ দিন। ভারতীয় ব্যবসায়ীরা এসব সমস্যা নিরসনে কলকাতা কাস্টমস হাউজ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে পত্র দেন কলকাতাস্থ বাংলাদেশ ডেপুটি হাইকমিশনারকে। চিঠিতে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানানো হয় বন্দরের পণ্যজট ও চেকপোস্টে যানজট সমস্যা সমাধানের। বাংলাদেশ, ভারত চেম্বার অব কমার্সের বন্দর উপকমিটির চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান জানান,বেনাপোল বন্দরে এবং প্রধান সড়কে যানজট লেগেই থাকত। পথচারীসহ বিপাকে পড়ত দেশ, বিদেশ থেকে আসা যাত্রীরা। আটকে থাকত দূরপাল্লার পরিবহন। আমদানি, রপ্তানিকৃত পণ্যবাহী ট্রাকগুলো আটকে যেত সড়কে। ফলে ব্যাহত হতো বাণিজ্য। একাধিকবার চেষ্টা করেও যানজট নিরসন হয়নি। এখন সেটির সমাধান হয়েছে।

এসব বিষয়ে বেনাপোল কাস্টমস কমিশনার মোহাম্মদ বেলাল হোসাইন চৌধুরী নিউজ ৭১ ডটকমকে জানান,দুই দেশের জয়েন্ট গ্রুপ আব কাস্টমস এর মিটিং এ বেনাপোল চেকপোস্টকে যানজট মুক্ত করার আহ্বান জানানো হয় ভারতীয় কাস্টমসের পক্ষ থেকে। যানজটের কারণে আমদানি কমে রাজস্ব আয়ও কমে যাচ্ছিল। বিজিবি, পুলিশ, আনসার, সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টস ও ট্রাক শ্রমিকদের সহযোগিতায় চেকপোস্টকে যানজট মুক্ত করায় আমদানি বাড়তে শুরু করেছে। সমস্যা নয় সম্ভাবনার আলোকে বেনাপোলকে গড়তে আধুনিকায়নে,রাজস্ব বৃদ্ধিতে আমদানি ও রপ্তানি বাণিজ্যের গতি ফেরাতে উন্নত বিশ্বের কাতারে বেনাপোল বন্দর ও কাস্টমসকে পরিচয় করাতে একাধিক পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়নের চেষ্টা করা হচ্ছে ব্যবসায়ী, প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি, সুধীসহ বিভিন্ন সংগঠনের সাথে সভা মতবিনিময় করে সমস্যার সমাধানে চেষ্টা করা হচ্ছে। অচিরেই বেনাপোল একটি রোল মডেলে পরিণত হবে বলে আশা করেন তিনি

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')