bangladesh
 22 May 20, 12:11 PM
 48             0

খুলনায় ঘূর্নিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত বেড়িবাঁধের সংস্কার কাজ করছেন ভূক্তভোগীরাই॥  

খুলনায় ঘূর্নিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত বেড়িবাঁধের সংস্কার কাজ করছেন ভূক্তভোগীরাই॥   

নিউজ ডেস্কঃ আম্ফানের তাণ্ডবে খুলনার উপকূলীয় কয়রা, দাকোপ ও বটিয়াঘাটায় বেড়িবাঁধে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। খুলনার কয়রার ঘূর্ণিঝড়ের আঘাতে দক্ষিণ বেদকাশি, জোড়শিং বাজার, গোলখালী, উত্তর বেদকাশি গাজীপাড়া, ঘাটাখালি এলাকায় বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে ঘরবাড়ি ও ফসলি জমি প্লাবিত হয়েছে । কয়রার ইউপি চেয়ারম্যান জিএম শামসুর রহমান বলেন, জোড়শিং বাজারসহ দক্ষিণ বেদকাশি এলাকার বেড়িবাঁধের নাজুক অবস্থা সম্পর্কে পানি উন্নয়ন বোর্ডকে (পাউবো) আগেই কয়েকবার জানানো হয়েছিল। কিন্তু তারা গুরুত্ব না দেয়ায় ভাঙনে সাধারণ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। তিনি বলেন, যেনতেন ভাবে সংস্কার করায় প্রতিবছর ভাঙছে বেড়িবাঁধ। এতে বিপর্যয়ের মধ্যে পড়ছেন এলাকার মানুষ। এ কারণে ক্ষতিগ্রস্তরাই এবার নিজেরা শুরু করেছেন বাধ সংস্কারের কাজ ।

কয়রার স্থানীয়রা জানান ঘূর্ণিঝড় শুরু হওয়ার আগেই জোয়ারের পানি বেড়িবাঁধ উপচে লোকালয়ে ঢুকতে থাকে। এসময় স্থানীয়রা স্বেচ্ছা শ্রমের ভিত্তিতে বেড়িবাঁধে মাটি দিয়ে তা’ রক্ষার চেষ্টা করেন। কিন্তু রাতে জোয়ারের পানিতে বেড়িবাঁধ ভেঙে সমগ্র এলাকা প্লাবিত হয়। এসময় পাউবো কর্মকর্তাদের তেমন পদক্ষেপ দেখা যায়নি। তাই ক্ষতিগ্রস্ত গ্রামবাসী নিজের রক্ষার জন্যই নেমেছেন বেড়িবাঁধ সংস্কারে। একই চিত্র বটিয়াঘাটার পানখালি ও সুরখালি ইউনিয়েনে। এখানে পানির তোড়ে বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে যাওয়ার পর স্থানীয়রাই নিজেদের উদ্যোগে বেড়িবাঁধ সংস্কারের কাজ শুরু করেছেন ।এদিকে অস্বাভাবিক পানির তোড়ে দাকোপ উপজেলার গুনারী, নলিয়ান, কালাবগী ও বানীশান্তা এলাকায় বেড়িবাঁধের বাইরে বসবাসরত ৩ শতাধিক ঘরবাড়ি ভেসে গেছে। এরই মধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেছেন বিভাগীয় কমিশনার ড. মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন হাওলাদার এবং জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন ।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')