Bangladesh
 24 Jun 20, 10:40 PM
 242             0

সিআইডি’র সাফল্য॥ কয়রার রজব হত্যার রহস্য উদঘাটন- অভিযুক্তদের স্বীকারাক্তিমুলক জবানবন্দি

সিআইডি’র সাফল্য॥ কয়রার রজব হত্যার রহস্য উদঘাটন- অভিযুক্তদের স্বীকারাক্তিমুলক জবানবন্দি

নিউজ ডেস্কঃ খুলনা জেলার কয়রা থানা এলাকার আলোচিত রজব হত্যা মামলার অন্যতম আসামী মোস্তফা ঢালীকে (২৫) কে অত্যন্ত সুকৌশলে আটক করেছে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা খুলনা জেলা সিআইডি’র এসআই মোল্যা লুৎফর রহমান। গতকাল ২৩ জুন বিকাল অনুমান ৪ টা ২০ মিনিটে সীমান্তবর্তী সাতক্ষীরা জেলার সদর থানা ভোমরা এলাকার দাতভাঙ্গা বিল থেকে সিআইডির ডিআইজি শেখ নাজমুল আলমের নির্দেশনায় বিশেষ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আব্দুল কাদেরের উপস্থিতিতে তাকে আটক করেন তদন্ত কর্মকর্তা ।

এই হত্যা মামলা সম্পর্কে অনুসন্ধানে জানা গেছে, গত বছর ২৬ জুন কয়রা উপজেলার ৪ নং কয়রা গ্রামের রজব আলী ঢালীর (৫৫) সাথে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে তার চাচাতো ভাইপোদের সাথে বাদানুবাদ হয়। এঘটনায় উভয়পক্ষের হাতাহাতির এক পর্যায়ে আকস্মিকভাবে রজব ঢালীর মাথায় আঘাত করে তারই ভাইপো দূর্লভ ঢালী। এ ঘটনায় রজব আলীর মাথা ফেটে গেলে তাকে আহত অবস্থায় স্থানীয়রা উদ্ধার করে প্রথমে কয়রা জায়গীর মহল হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে অবস্থার অবনতি ঘটলে তাকে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১দিন পর রজব আলী মারা যায়। আর রজব আলীর মারা যাওয়ার খবর চাউর হতেই মামালার মুল অভিযুক্ত দুর্লভ ঢালী তার ভাই মোস্তফা ঢালী ও তাদের পিতা দুলু ঢালী গোপনে ভারতে পালিয়ে যায়।

এদিকে এঘটনার পর মামালা করা নিয়ে শুরু হয় চরম নাটকীয়তা। স্থানীয় রেশারেশি ও আধিপত্য বিস্তারের জন্য এলাকার জনপ্রতিনিধিসহ প্রতিপক্ষের নামে শুরু হয় হত্যা মামলার প্রস্তুতি। যেকারনে মামালা দায়ের করতে বেশ দেরী হয়ে যায়। এদিকে হত্যা রজব ঢালী মারা যাওয়ার পরও হত্যা মামলা দিতে গড়িমশি করায় স্থানীয় কয়রা থানার পুলিশ স্বপ্রোনোদিত হয়ে সরেজমিন ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রকৃত ঘটনা উল্লেখ করে নিজেরাই একটি সাধারন ডাইরী করেন। যেখানে উল্লেখ করা হয় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে পারিবারিক কলহের জের ধরে আকস্মিক মারামারিতে মাথা ফেটে গুরুতর আহত হয় রজব ঢালী। পরে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সে মারা যায়।

সম্পূর্ন পারিবারিক কলহের কারনে এই মারামারি থেকে হ্ত্যাকান্ড সংগঠিত হলেও প্রতিপক্ষকে জব্দ করার জন্য মৃতের স্ত্রী খাদিজা খাতুনকে বাদী করে ২০ জনকে আসামী করে কয়রা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়। প্রকাশ্য দিবালোকে সকলের চোখের সামনে পারিবারিক এই ঘটনার পরও হয়রানী মুলকভাবে এলাকার ১৬/১৭ জন মানুষকে এই মামালায় জডানো হয় যাদের এই ঘটনায় কোন প্রকার সম্পৃক্ততা ছিলনা। থানা পুলিশের লিপিবদ্ধ জিডিতেও এমন ইঙ্গিত উল্লেখ করা হয়। যেকারনে ওই মামলায় ১, ৪, ও ৬ নং আসামী বাদে সকল আসামীরা আদালত থেকে সহজেই জামিন লাভ করেন। আর মামালার তদন্তভার যায় বাংলাদেশের ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশান ডিপার্টমেন্ট বা সিআইডির কাছে।

মামলাটি হাতে পেয়েই সিআইডি’র তদন্ত কর্মকর্তা বুঝতে পারেন ঘটনার প্রকৃত সত্য উদঘাটন করতে গেলে তাকে কৌশলে মুল অভিযুক্তদের ভারত থেকে ফিরিয়ে এনে আদালতে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি দেয়াতে হবে। এই মিশন নিয়ে তিনি নিজ উদ্দোগে সুকৌশলে গোপনীয়ভাবে শুরু করেন কাজ। আর এই কাজের ধারাবাহিকতায় হত্যাকান্ডের ৯ মাস পর ১লা মার্চ এই হত্যা মামলার ২ জন হত্যা আসামী দূর্লভ ও তার পিতা দুলু ঢালীকে ভারতে থেকে আসার পথে বর্ডার থেকে গ্রেফতার করে সিআইডি। তারা আদালতে হত্যাকাণ্ডে নিজেদের সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দেয়।


তদন্ত কর্মকতা এসআই মোল্যা লুৎফর রহমান বুঝতে পারেন মামলাটি শেষ করতে গেলে ঘটনায় সম্পৃক্ত প্রকৃত সব অপরাধীদের আটক করে আদালতে সোপর্দ করতে হবে । আর তার সামনে মোস্তফা ঢালীকে আদালতে হাজির করার কোন বিকল্প নেই। তাকে আটক করতে পারলেই তিনি সব অভিযুক্তদের কোর্টে হাজির করিয়ে মামালা শেষ করতে পারবেন। সিআইডি সদর দপ্তরে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তাকে ডেকে এমনই নির্দশ দেন ডিআইজি শেখ নাজমুল আলম ও অতিরিক্ত ডিআইজি শেখ ওমর ফারুক। তারা তদন্ত কর্মকর্তাকে বলেন মামালায় যেমন নিরীহ লোকদের হয়রানী করা যাবে না তেমনি একজন অপরাধীও যাতে অভিযোগপত্র থেকে বাদ না পড়ে সে বিষয়টিও সতর্কভাবে খেয়াল রাখতে হবে।

উর্ধতন কর্মকর্তাদের কাছ থেকে এমন নির্দেশনা পাওয়ায় পর ভারতে পালিয়ে থাকা এই হত্যাকাণ্ডের অন্যতম অভিযুক্ত ৬ নং আসামী মোস্তফা ঢালীকে সিআইডির তদন্ত কর্মকর্তা সুকৌশলে আত্মসমর্পনের কথা বলে দেশে ফিরিয়ে আনতে তৎপর হন। তদন্ত কর্মকর্তার আহ্বানে সাড়া দিয়ে গতকাল ২৩ জুন সাতক্ষীরার ভোমরা বর্ডার পার হলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডির এসআই মোল্লা লুৎফর রহমান তাকে আটক করে। পরে আজ আটককৃত মোস্তফা ঢালীকে ২৪ জুন কয়রা উপজেলা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিট্রেট আদালতে হাজির করা হলে সে ঘটনা সম্পর্কে সবিস্তার খুলে বলে স্বীকারাক্তিমুলক জবানবন্দি দেয়।

আদালত সুত্রে জানাগেছে আসামী মোস্তফা ঢালী আদালতে দেয়া তার জবানবন্দীতে বলেছেন , আমাদের একটি গরু আমার চাচা রজব আরীর কলাগাছ খায়। ওই ঘটনা নিয়ে চাচা রজব আলীর সাথে আমার বাবার কথা কাটাকাটি ও এক পর্যায় মারামারি লেগে যায়। তখন আমার ভাই ঘর থেকে বেরিয়ে বাবার পক্ষ নিয়ে চাচাকে পিছন থেকে লাঠি দিয়ে আঘাত করে। এতে আমার চাচা মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। সেখান থেকে তাকে রক্তমাখা অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে কয়রা জায়গীর মহল হাসপাতাল ও পরে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করলে পরদিন ২৭ জুন ২০১৯ সকালে মারা যায়। মোস্তফা তার জবানবন্দীতে আদালতকে আরও জানায় ঘটনার সময় তারা ৩ জন ছাড়া এজাহারে উল্লেখিত অন্যান্য আসামীরা কেউ উপস্থিত ছিল না।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')