features
 15 Aug 16, 11:43 AM
 292             0

১৫ আগস্টের অঙ্গীকার ।। শোককে শক্তিতে পরিনত করে দেশকে এগিয়ে নিতে হবে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে

১৫ আগস্টের অঙ্গীকার ।। শোককে শক্তিতে পরিনত করে দেশকে এগিয়ে নিতে হবে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে

 

সোহাগ সরকার ।। আজ শোকাবহ ১৫ ই আগস্ট । জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪১ তম শাহাদৎ বার্ষিকী। বাঙ্গালী জাতির জীবনে এক শোকাবহ অন্ধকার রাত্রি। ১৯৭৫ সালের এই দিনে ভোরের আকাশের রক্তিম  সূর্যোদয়ের পূর্বেই ঘটেছিল ইতিহাসের এক কলঙ্কজনক ঘটনা। ৭১ এর পরাজিত শক্তির প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ মদদে কিছু সংখ্যক উচ্চাভিলাসী, উচ্ছৃংখল সেনা কর্মকর্তার হাতে  সপরিবারে প্রাণ দিয়েছিলেন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ সন্তান, আমাদের স্বাধীনতার মহান স্থপতি, বাংলার অবিসংবাদিত নেতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ১৫ আগস্টের সেই সর্বনাশা রাতের দৃশ্যপট কল্পনার চোখে একবার ভেসে উঠলেই শিহরিত হতে হয়। ধানমণ্ডির লেক পাড়ের  ৩২ নম্বরের বাড়ির সিঁড়িতে জাতির জনকের রক্তাক্ত মৃতদেহ। বাঙালী জাতীর যে এই মৃতদেহ বহনের শক্তি ছিলনা।

'এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম আমাদের স্বাধীনতার সংগ্রাম'। বাঙালির প্রাণের ধ্বনি বাঘের গর্জনের মাধ্যমে বহিঃপ্রকাশ। আমাদের স্বাধীকার আন্দোলনেনর পথ প্রদর্শক, এদেশের সকল গনমানুষের প্রাণপুরুষ-সর্বকালের সেরা বাঙালি, বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মানেই স্বাধীন বাংলাদেশ। স্বাধীনতা মানে শেখ মুজিব, উত্তাল গণঅভ্যুত্থান, ৭ মার্চের ভাষণ, পাক সেনাদের বিরুদ্ধে বাঙালির প্রাণপন লড়াই। ত্রিশ লাখ শহীদের রক্তে কেনা বাংলাদেশ, দুই লাখ মা-বোনের জীবনের বিনিময়ে কেনা বাংলাদেশ।

৭৫ এর ১৫ আগষ্ট ঘাতকের ভয়ঙ্কর ছোবলে শোকার্ত , রক্তাক্ত হল স্বাধীনতা । মুহূর্তেই পাল্টে গেল বাংলাদেশের দৃশ্যপট । সারা বিশ্বের কাছে আমাদের মাথা হেঁট করে দেওয়া । স্বাধীন সার্বভৌম দেশে জাতীর পিতাকে হত্যা করার মত ইতিহাসের জঘন্য ঘৃনিত ঘটনার স্বাক্ষী হল বাংলাদেশ । কাকভোরে বাঙালী কোন কিছু বুঝে ওঠার আগেই সব শেষ। ঘাতকের নৃশংস বুলেট ঝাঁঝরা করে দিল জাতীর পিতার শরীর । ৭৫ এর এই দিনে শুধু জাতীর পিতা নন তার যোগ্য সহধর্মিনী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুননেছা মুজিবসহ বঙ্গঁবন্ধু পরিবারের সকল সদস্য নিহত হন। এদিনের ঘটনায় শুধু বাংলাদেশ নয় গোটা বিশ্ব স্তম্ভিত হল। শুধুমাত্র বিদেশে অবস্থানের কারনে আমাদের প্রানপ্রিয় নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও জাতীর পিতার কনিষ্ঠ কন্যা শেখ রেহানা প্রানে বেঁচে যান।

৭৫ এর ১৫ আগষ্ট এই নৃসংশ ঘটনার পর দীর্ঘ বছর কেটে গেছে। কালে আইন করে মুজিব হত্যার বিচারের পথ রুদ্ধ করা হয় । ৯৬ সালে বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা রাষ্ট্র ক্ষমতায় আসার পর কালো আইন ( ইনডেমনিটি ) বাতিলের করে দীর্ঘ আইনি পথ পেরিয়ে জাতীর পিতা হত্যার বিচার হয়েছে । কিন্ত সকল আত্মস্বীকৃত খুনীদের ফাঁসীর সাজা এখনও কার্যকর করা সম্ভব হয়নি। তার উপর জাতীর পিতা হত্যার নেপথ্যে জড়িত কুশী-লবরাও থেকে গেছে পর্দার অন্তরালে।

এখন সময় এসেছে বঙ্গবন্ধুর সকল আত্মস্বীকৃত খুনীদের ফাঁসীর রায় কার্যকরের পাশাপাশি ঘটনার গভীরে যে সকল ষড়যন্ত্রকারী জড়িত তাদের তাদের খুঁজে বের করে আইনের আমলে আনার। বিচারের মুখোমুখি দাঁড় করানোর । স্বাধীন বাংলাদেশে যখন মানবতা বিরোধী অপরাধ তথা যুদ্ধাপরাদের বিচার হচ্ছে সেখানে জাতীর পিতা হত্যার সকল ষড়যন্ত্রকারীদের খুঁজে বের করে বিচারের মুখোমুখি দাঁড় করানো সময়ের দাবী। আজকের এই দিনে তাই বাংলাদেশ সরকারসহ বিশ্ব সম্প্রদায়ের কাছে আবেদন বঙ্গবন্ধু হত্যার সাথে জড়িত সকল ষড়যন্ত্রকারীদের বিচারের মুখোমুখি দাঁড় করানো হোক। ষড়যন্ত্রকারীদের বিষদাঁত সমুলে উৎপাটিত হোক বাংলার মাটি থেকে। শোককে শক্তিতে পরিনত করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে আমাদের অনাগত ভবিষ্যতের দিকে । এই হোক আজকের দিনের দীপ্ত শপথ, সকলের অঙ্গীকার।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')