features
 02 Oct 16, 12:18 AM
 425             0

*একজন পুলিশ সুপার*

*একজন পুলিশ সুপার*

ছোটবেলা থেকেই সবার সপ্ন থাকে বড় হয়ে ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার বা সাংবাদিক হবার।মানুষ সেই লক্ষ্যেই ছোটে।কিন্ত টি,এম মোজাহিদুল ইসলাম এর বিষয়টা একটু অন্য রকম।বলছি চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার সম্মানিত পুলিশ সুপারের কথা।সন্তানের দেখভাল যেমন পিতামাতা করেন তেমনি সন্তানের মত জেলার দেখভাল ও করেন একজন পুলিশ সুপার।সারাদিনের কর্মব্যস্ততা, প্রশাসনিক কাজ সবকিছুই যেন ঘিরে আছে এই পুলিশ কর্মকর্তাকে।তারপরেও তিনি সময় পেলে খুজে নেন একটু অবসর,কাটান মধুর কিছু মুহুর্ত।

আজ জানব তার সম্পর্কেই,,,,,

সপ্নের শৈশব খুব বেশি মনে পড়ে,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,, ছোটবেলা থেকেই আর ৮-১০ টা ছেলের মত ছিলেন না মোজাহিদুল ইসলাম।ছোটবেলা থেকেই তিনি ছিলেন খুব শান্ত, ঠান্ডা ও নিরীহ সভাবের। গাজীপুরের টংগীতে জন্ম তার।বাবা কাজ করতেন ফুডে।শান্ত বলে সবাই ভালোবাসতেন তাকে।তবে সবসময় থাকতেন পরিবারের কড়া শাসনে।একচুলও এদিক ওদিক হবার সুযোগ ছিলনা।তবে ছোটবেলা থেকেই খেলাধুলার উপর খুব ঝোক ছিল তার।ফুটবল,ক্রিকেট,ব্যাডমিন্টন, ভলিবল,টেনিশ সহ প্রায় সকল ফিজিকাল খেলায় তার দাপট ছিল এবং এখনো আছে,এবং আছে অনেক পুরস্কারো আর তাই সেই শৈশব খুব বেশি মনে পড়ে তার। শিক্ষা জীবনটা একটু মজারই ছিল আমার,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,, "

সব মিলিয়ে বলতে গেলে আমার শিক্ষা জীবনটা একটু মজারই ছিল,চেয়েছি একটা হয়েছি আরেকটা।" এভাবেই মুচকি একটা হাসি দিয়ে কথা ব্যক্ত করলেন মোজাহিদুল ইসলাম।ছোটবেলা থেকেই তেমন কোন সপ্ন ছিলনা তার।স্কুল পার করার পর নটরডেম কলেজে সাইন্সে ভর্তি হতে গিয়ে ভর্তি হয়েছিলেন কমার্সে।হঠাতই তাকে ঘিরে ধরে বাংলাদেশ ব্যাংকে কাজ করার সপ্ন।এরপর ঢাকা সিটি কলেজে ডিগ্রীতে ভর্তি হন।ঢাকা ইউনিভার্সিটিতে পড়ার তেমন ইচ্ছা ছিলনা তার।তবে বন্ধুর জোরাজোরিতে,বন্ধুর টাকাই ফর্ম কিনে পরিক্ষা দেয়ার পর চান্সো পেয়ে যান তিনি ফাইন্যান্সে।মাসার্টস ও করেন একই সাব্জেক্ট এর উপর ব্যাংকেও কাজ করেন কিছু দিন। বিসিএস দেবার তেমন আগ্রহ ছিলনা এই পুলিশ সুপারের। বাংলাদেশ ব্যাংকে কাজ করার ইচ্ছায় চেপে ধরেছে তাকে।তবে আবারো বন্ধুর চাপে বিসি এস দিতে হই তাকে আর মেধাস্থানে ১৫ তম হয়ে ব্যাংকের সপ্ন বাদ দিয়ে পুলিশের খাতায় নাম লিখান এই পুলিশ সুপার। চেষ্টা করেছি সৎ হয়ে কাজ করতে,,,,,,,,,,,,,,,,,,

পুলিশে যোগ দেবার পর থেকেই চেষ্টা করেছি, করছি এবং করবো সৎ ভাবে কাজ করার। বাংলাদেশ পুলিশের ২য় ডাইরেক্টর অফিসার হয়ে কাজ করেছেন এই পুলিশ সুপার।এছাড়া র‍্যাবে,ডিবিতে,এ,এস,পি,এস,পি, তে বিভিন্ন জেলায় কাজ করেছেন তিনি।২০০৬ সালে এফ,পি,ইউতে আইভোরিকোস্টে অপারেশনসস হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন,আর ২০১০ সালে তিনি ১ বছরের S,A,T মিশনে ইস্তাম্বুলে মিশনে ছিলেন।আর ২০১৬ তে চাঁপাইনবাবগঞ্জ এ আছেন এস,পি হিসেবে। অবসর সময় পেলেই পরিবারকে দেই,খেলাধুলা করি,গান শুনি,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,"

সত্যি কথা বলতে কি সকল প্রকার কাজ কর্ম শেষ করতে করতে কখন যে দিন পার হয়ে যায় বুঝতেই পারিনা" আফসোস নিয়ে এভাবেই বলছিলেন মোজাহিদুল ইসলাম।অবসর সময় সেভাবে মিলেনা তার।তবে যখনি সময় পান তখনই সেই সময় টুকু পরিবারকে,সন্তানকে,স্ত্রীকে দেন।বাচ্চাদের নিয়ে ঘুরতে যাওয়া,, গল্প করা,,,গান শুনা,,,খেলাধুলা করা এইভাবেই আসলে পার করেন অবসর সময়। আর স্ত্রীর সাথে বারান্দায় কফি খাওয়া আর রাতের আকাশে তারা গুনাও মিশ করেন না অবসর সময়ে। প্রতিদিন ঘুম থেকে উঠেই বাচ্চাদেরকে, আর ঘর থেকে বের হবার সময় স্ত্রীকে সালাম দেই,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,

জেলার শাসন আর সন্তানের শাসনের মধ্যে একটু পার্থক্য থাকলেও ভালোবাসা কিন্ত তার কাছে একই।সন্তানের সাথে বন্ধুসুলভ আচরণই পারে সন্তানকে সুন্দর সপ্নময় করে তুলতে বললেন এই পুলিশ সুপার।প্রত্যেকদিন সকালে ঘুম থেকে উঠেই সালাম দেন সন্তানদের আর ঘর থেকে বের হবার সময় সালাম দেন স্ত্রীকে। সালাম না দিলে যেন দিনটা ভালো কাটেনা এই অফিসারের।তবে বাচ্চাদেরকে ভালোবাসার পাশাপাশি যতটটুকু শাসন করা দরকার ততটুকু শাসন ও করেন তিনি সাধারন পিতার মত। "যতদিন এই পেশায় আছি সম্মানের সাথে থাকতে চায়",,,,,,,,,,,,,

পুলিশের এই কাজ এখন তার কাছে সপ্ন,সম্মান,অহংকার।জীবনের শেষ সময় সম্মানের সাথে এই কাজ করতে চান তিনি।তার নিকট যত পুলিশ অফিসার কাজ করেন সবাইকে তিনি অন্যরকম ভালোবাসেন,আর সম্মান করেন। সৎ কাজের জন্য দেন পুরস্কার আর অসৎ কাজের জন্য শাস্তি দিতে একদমই দেরি করেন না এই অফিসার। এক জেলা থেকে অন্য জেলা যাবার সময় ভালোবাসা টুকুই তার শেষ সম্বল।তিনি বলেন যতদিন এই পেশায় থাকবো সম্মানের সাথে থাকতে চায়।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')