features
 09 Mar 17, 06:33 PM
 275             0

আনন্দেও অশ্রু ঝরে চোখে ---টিএস রহমান

আনন্দেও অশ্রু ঝরে চোখে  ---টিএস রহমান

 

শৈশবে সম্ভবত মাহে নও পত্রিকায় একটি গল্প পড়েছিলাম। পত্রিকার নামটি ভুলও হতে পারে। তবে কাহিনীটি মনে আছে।

দুই গাধা-বন্ধু। শৈশব থেকে একই আথালে মানুষ। মালিক একদিন বিক্রি করে দিলেন দুটিকে। একটি কিনলেন এক ধোপা, অন্যটি এক সার্কাসওয়ালা। দুজনার দুটি পথ দুটি দিকে গেলো বেঁকে।

সার্কাসমালিক খেলা দেখাতে দেখাতে একদিন এলেন ধোপাবাড়ির কাছে। দুই বন্ধুর দেখা হলো মাঠে ঘাস খেতে গিয়ে।

সার্কাসের গাধা হয়ে গেছে হাড্ডিসার। এখান থেকে সেখানে বইতে হয় তাকে সার্কাসের ভারি ভারি জিনিস। সবাই সারারাত সার্কাস দেখিয়ে দিনে ঘুমায়। ঘাস খাওয়ানোর কেউ নেই। অন্যদিকে ধোপার গাধা নাদুসনুদুস। সপ্তাহে দুদিন মাত্র ডিউটি, হালকা ক'টা কাপড় বইতে হয়। তাও লাঞ্চের পর।

বন্ধুর দুরবস্থা দেখে ধোপার গাধা বললো, 'তুই আমার সাথে থেকে যা দোস্ত। এখানে কাজ কম, খেতে পাবি ভালো।'

শোনামাত্রই প্রস্তাবটি প্রত্যাখ্যান করলো সার্কাসের গাধা, 'নারে দোস্ত সেটি হবার নয়।'

'কেনো?'

'সার্কাসের দলে থাকলে আমার একটি প্রাপ্তিযোগ আছে। আমি সেটি হারাতে চাইনে কিছুতেই।'

'কী সেটা?'

'শোন্, সার্কাস-মালিকের অষ্টাদশী মেয়েটিকে দড়িতে হাঁটা শেখান ওর ওস্তাদ। তন্বী মেয়েটি দড়িতে চড়লেই তিনি বলেন, আজ তুমি যদি দড়ি থেকে পড়ে যাও তবে এই গাধার সাথেই তোমাকে বিয়ে দেবো। আমি দিন গুণছি, কবে দড়ি ছিঁড়ে পড়বে সুন্দরী মেয়েটি।'

 

একজন জেলা প্রশাসককে এমন কিছু তাৎক্ষণিক কাজ করতে হয় যার জন্য নিয়মিত জনবল নেই তাঁর। বিভিন্ন জাতীয় দিবস পালনের জন্য বিশিষ্টজনদের কাছে চিঠিপত্র পৌঁছানো, মাঠ সাজানো, রাষ্ট্রের বা সরকারের সর্বোচ্চ ব্যক্তিদের আগমন এবং জনসংযোগ - হতে পারে মহামান্য রাষ্ট্রপতি বা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আগমন ও সভা করা। এই কাজগুলি আদতে আউটসোর্সিং করে বা তাৎক্ষণিক শ্রমিক নিয়োগের মাধ্যমে সুচারুরূপে সম্পন্ন করা সম্ভব নয়। এ কাজে তাঁর তাৎক্ষণিক বেশ কিছু জনবল দরকার। এ জন্য ডিসি অফিসে নিয়োগ করা থাকে কিছু লোক। এদেরকে বলা হয় উমেদার। এরা কিছুটা সার্কাসের গাধা। কোনো পিয়ন মারা গেলে বা অবসরে গেলে এরা চাকরি পাবে। চিঠিপত্র নিয়ে গেলে সংশ্লিষ্টরা ভাত খাওয়ান, বখশিশ দেন। বলতে গেলে পেটেভাতে চাকরি।

বাচ্চাদের লেখাপড়া চলছে। ওদের মা ছেলেদুটি  নিয়ে থাকেন ঢাকাতেই। ছুটিছাটায় আসেন মফস্বলের জেলায়। বাংলোতে কাজ তেমন কিছুই নেই। তারপরও নিয়োগ করা আছে জনা দশেক উমেদার। সবাই পুরুষ। ছেলেদের নিয়ে আমার স্ত্রী এলে একটি মেয়ে উমেদার আসে।

সারাদিন অফিস-মফস্বল সেরে সন্ধ্যার পরে বাসায় ফিরি। বাংলোতেও একটি অফিস আছে নিচতলায়। সেখানে কাজ সেরে উপরে উঠি বেশ রাতে। স্ত্রীর সাথে কথাবার্তায় জানতে পারি, মেয়েটির নাম নাসরিন। থাকে পদ্মাতীরের বাঁধের উপরে। সংসারে আছেন বৃদ্ধা মা, একটি অপোগণ্ড ভাই এবং প্রতিবন্ধী একটি বোন। আরও আছে হৃদপিণ্ডে একটি ছিদ্র, অপারেশন করাতে হবে কিন্তু টাকা নেই। দুটি শিশুসন্তানসহ কঙ্কালসার চল্লিশ কেজি ওজনের বউকে ছেড়ে পালিয়েছে স্বামী পুঙ্গবটি। ঘরের সবাই মিলে ঠোঙ্গা বানায়। এতে কোনোদিন কুড়ি টাকা, কোনোদিন বাইশ টাকা থাকে। বৃষ্টি-বাদলায় ঠোঙ্গা শুকোয় না, আয়ও হয়না। যেদিন নিজেরা চালাতে পারে সেদিন আধাপেটা খেতে পায় আর যেদিন আল্লাহ চালান সেদিন না খেয়ে থাকে।

নাসরিন অনেকদিন ধরে উমেদারি করছে। প্রতিবারেই, ওর হিসাবে, সিরিয়ালে গোড়ার দিকে থাকে কিন্তু চাকরি হয় না। চাকরি দেয়ার সময় দেখা যায় ওর সিরিয়াল উঠে গেছে এক থেকে ষাটে। জীবনের উন্নতি না হলেও রোল নম্বরের উন্নতি ঘটে।

অফিসে পিয়ন নিয়োগের তোড়জোড় শুরু হয়েছে। আমার স্ত্রী মনে করিয়ে দিলেন, এবারে অন্তত অধর্মটি যেনো না হয়। আমাদেরও ছেলেপুলে আছে।

আমি অফিসে গিয়ে উমেদারদের তালিকাটি তলব করি। সেটি ফটোকপি করে এনডিসির হাতে দিয়ে বলি, 'সাবধানে সংরক্ষণ করো।' সংশ্লিষ্ট কর্মচারীটিকে ভয় দেখাই, 'উল্টোপাল্টা হলে খবর আছে।'

এবারে অন্যপথ। সন্ধ্যার পরে এক বিশিষ্ট ব্যক্তির শুভাগমন ঘটে বাংলোতে। তিনি চা-টা খেয়ে আমার ইহলৌকিক কল্যাণে তাঁর উৎকণ্ঠার কথা জানিয়ে হাত কচলে বেশ তাজিমের সঙ্গে জানালেন, এই চাকরিটির জন্য তিনি ছ' লাখ টাকার ব্যবস্থা করেছেন।

আমি উৎফুল্ল বদনে তাঁর জন্য আরেক কাপ চায়ের হুকুম করি। চা এলে ভদ্রলোককে বলি, 'দেখুন আমি গরিবের ছেলে। টাকার দরকার আছে আমার। আমি আউট অ্যান্ড আউট অনেস্টও নই। শুনেছি বিচারপতি শাহাবুদ্দিন সাহেব যখন এসডিও ছিলেন তখন নিজের হাতে চোর পেটাতেন, কেটেফেটে গেলে বেতনের পয়সা দিয়ে চিকিৎসা করাতেন। 'দণ্ডদাতা কাঁদে যবে দণ্ডিতের সাথে, সর্বশ্রেষ্ঠ সে বিচার'। সে রকম বিচারক হওয়ার সৌভাগ্য আমার হয় নি। তাঁর স্ত্রী নাকি বঙ্গভবনের একটি কাঁঠাল এনেছিলেন ঘরে। এজন্য শাহাবুদ্দিন সাহেব বেতন থেকে কাঁঠালটির মূল্য ট্রেজারি চালানের মাধ্যমে সরকারি কোষাগারে জমা দিয়ে দেন। আমি কিন্তু বাংলোর আম-কাঁঠাল খাই মুফতে। আমার দুটি সন্তান আছে। টাকাটা আমি নিতে পারি যদি আপনি এরূপ একটি নিশ্চয়তা  দেন যে, আমার ছেলে দুটিকে কোনোদিন বাঁধের উপরে থাকতে হবে না। না হলে ছয় লাখ কেনো, ছ' কোটি বা ছয় শ কোটি টাকাতেও আমি দুটি শিশুর অসহায় মাকে বঞ্চিত করে চাকরিটি বেচবো না। ভাইরে, পৃথিবীর সমস্ত সম্পদের বদলে আমি আমার সন্তানের মুখে হাসি দেখতে চাই।'

'কলজেফুটো একটা মেয়েকে চাকরি দিয়ে কী হবে?' - ভদ্রলোকের শেষ চেষ্টা।

'হবে আর কী? ওর ফুটো কলিজাটা জোড়া লাগবে। বাঁধের উপরের একটি মেয়েকে কেউ সাহায্য করবে না কিন্তু ডিসি সাহেবের পিয়নকে সবাই টাকা দেবে।'

ভদ্রলোক হকচকিয়ে গেলেন এবং কাষ্ঠহাসি হেসে বিদায় নিলেন।

অগত্যা ফুটো-কলজের মেয়েটি চাকরিটি পেয়ে গেলো।

ছুটির দিন। কাজ কম। নাস্তা খেতে বসেছি আমরা। আমার স্ত্রী বললেন, 'কিরে নাসরিন, এতো হাসি কেনো তোর মুখে? বেতন পেয়েছিস মনে হয়।'

'জি আম্মা' - লাজুক হাসি নাসরিনের মুখে।

'বেতনের টাকা দিয়ে কী করলি রে বেটি?' - আমার স্ত্রী জানতে চান।

'চাউল কিনেছি আম্মা।'

'সব টাকা দিয়ে?'

'জি আম্মা, সব টাকা দিয়ে চাউল কিনেছি।'

'বলিস কী? সব টাকার চাউল?'

নাসরিন চোখে আঁচল চাপা দেয়। মনে হয় চোখ মুছছে। এরপর বলে, 'আম্মা, বড়ো কষ্ট করেছি সারাটি জীবন। দুদিন বৃষ্টি হলে একটানা উপোস। আমরা সামলাতে পারি কিন্তু বাচ্চা দুটি তো বোঝে না। ওরা কাঁদতো দিনরাত। মাঝে মাঝে মনে হতো চুরি করি। কিন্তু কীভাবে চুরি করতে হয় তা জানি না। তাই কালকে বেতন পেয়ে সব টাকার চাউল কিনেছি। চাউলের বস্তাগুলি দেখে ঘরের সকলের সে কী বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাস আর হাসি। তারপর সে কী কান্না। আনন্দের কান্না। আমার মা নামাজ পড়ে চাউলের বস্তা জড়িয়ে ধরে ঘুমিয়ে পড়েছেন। দেখলাম, চোখে তার শুকিয়ে আছে আনন্দের অশ্রু।'

একটু ধাতস্থ হয়ে নাসরিন বলে, 'ভাতের যে কী কষ্ট আম্মা! সারাটি অভুক্ত জীবনের একটি স্বপ্ন ছিলো, যদি কোনোদিন আল্লাহ চাকরি দেন তবে প্রথম বেতনের সব টাকা দিয়ে চাউল কিনবো। অভুক্ত বাচ্চারা আর ভাতের জন্য কাঁদবে না সারাদিন সারারাত।'

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')