features
 07 Apr 17, 12:12 AM
 181             0

স্বপ্ন ছিল ফাইনালে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ই চ্যাম্পিয়ন হবে

স্বপ্ন ছিল ফাইনালে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ই চ্যাম্পিয়ন হবে

পঞ্চম আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় ফুটবল প্রতিযোগিতায় ঢাবি বনাম জাবির কোয়ার্টার ফাইনাল ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে। গত মঙ্গলবার বিকেল ৪ টায় খেলাটি শুরু হয় এবং নির্ধারিত সময়ে গোলশূন্য থাকায়; খেলাটি ট্রাই-ব্রেকারে গড়ায়। ট্রাই-ব্রেকারে জাবি ঢাবিকে ৪-২ গোলের ব্যবধানে পরাজিত করে বিজয় ছিনিয়ে আনে।

ফুটবল খেলা শুরু  হওয়ার পর থেকেই আমাদের প্লেয়ারদের গায়ে ডিরেক্ট হিট করা শুরু করে ঢাবির প্লেয়াররা। ঘুষি, আচমকা জোরে ধাক্কা, বুকেপিঠে লাথি  শুরু হয়ে যায়! এতো কিছুর পরেও নির্ধারিত সময়ে গোল করতে না পারায় ঢাবির প্লেয়ার ও দর্শকরা আমাদের প্লেয়ার এবং দায়িত্বপ্রাপ্ত রেফারির উপর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। খেলা যখন ট্রাই-ব্রেকারে গড়াবে এমন সময়ে শত শত দর্শক রেফারিকে বেদম মার শুরু করে।

রেফারিকে বাঁচাতে আসলে ঢাবির এক শিক্ষকও শারীরিকভাবে তাদের হাতেই লাঞ্ছিত হয়। রক্তাক্ত রেফারিকে তৎক্ষণাৎ মেডিকেলে স্থানান্তর করা হয়। ঢাবির জগন্নাথ হলের প্রভোস্ট, ফুটবল ম্যানেজার, উপস্থিত অন্যান্য শিক্ষকমন্ডলী সহ কেউই পরিস্থিতি শান্ত করতে পারছিলেন না।

গোলশূন্য অবস্থায় খেলা ড্র হবার ফলে খেলা টারব্রেকারে গড়ায়। টাইব্রেকারের আগে আমাদের প্লেয়ারদের বিভিন্ন প্রকারে  হুমকি দেয়া হলে আমরা একপর্যায়ে না খেলে চলে আসার সিদ্ধান্ত নেই। কিন্তু আমাদেরকে আসতে বাধা দেয় এবং বলে খেলতে হবে এবং হেরে তবেই যেতে হবে। কিন্তু আমাদের প্লেয়াররা এতো হুমকি ধামকির পরেও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের মাথা নিঁচু হতে দেয় নি। ট্রাই-ব্রেকারে আমরা ৪-২ গোলে ঢাবিকে পরাজিত করি।

খেলা শেষ হলে পেছন থেকে কয়েক হাজার বিক্ষিপ্ত ঢাবি ছাত্র (দর্শক) আমাদেরকে ধাওয়া করে আঘাত করার চেষ্টা করে। আমাদের প্লেয়াররা জার্সি খুলে জীবন বাঁচানোর তাগিদে দলবদ্ধভাবে উল্টা রাস্তা দিয়ে ঘুরে প্রায় ২ কিলোমিটার দৌঁড়িয়ে বঙ্গবাজারে এসে জাবির বাসে উঠে।আমাদের বাস মাঠের পাশে থাকার কথা থাকলেও ঢাবির দর্শকরা বাস ভেঙে দিবে; এই ভয়ে খেলোয়াড়দের নিয়ে যাবার কোন বাস আসেনি।

জাবি কর্তৃপক্ষের কাছে আমাদের খেলোয়াড় এবং জাবির দর্শকদের জীবনের থেকে  একটা বাসের মূল্য অনেক বেশি হয়ে গিয়েছিল। নিরাপত্তা হীনতায় আমদের বাস  সোজা রুটে না এসে মৎস্য ভবন, বাংলামটর, ফার্মগেট দিয়ে ঘুরে জাবির উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। ঢাবির ছাত্র দর্শকরা বলেছিল, “হয় জীবন নয় জয়” যেকোন একটা বেছে নিতে। আমরা আল্লাহর রহমতে জয় এবং জীবন দুইটা নিয়েই ক্যাম্পাসে ফিরে এসেছি।

ঢাবির এতো বিক্ষিপ্ত ছাত্র দর্শকদের মাঝেও কয়েকজন ছাত্র শিক্ষক যদি আমাদেরকে প্রটোকলের সঙ্গে কেন্দ্রীয় মাঠ থেকে বের করে গাড়ি পর্যন্ত এগিয়ে না দিতেন, তাহলে  ওই দিন আমরা কেউ সুস্থভাবে ক্যাম্পাসে ফিরে আসতে পারতাম না। মঙ্গলবার যদি আমাদের কেউ গুরুতর আহত হতো তাহলে তার দায়ভার কি আসলেই কেউ নিতো? আজ বৃহস্পতিবার ঢাবির একই ভেন্যুতে জাবি  এবং যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে সেমিফাইনাল ম্যাচটি অনুষ্ঠিত  হওয়ার কথা ছিল। যেখানে ঢাবি প্রশাসন, জাবি প্রশাসন নিরাপত্তা দিতে সম্পূর্ণরূপে ব্যর্থ সেখানে কি আবার খেলতে যাওয়া উচিত ছিল? কারণ একটা খেলা থেকে জীবনের মূল্য অনেক বেশি। আমাদের নিরাপত্তার স্বার্থে জাবি প্রশাসন আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় ফুটবল খেলা প্রতিযোগিতা থেকে নিজেদের নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছে। সুতরাং সেমি-ফাইনাল ম্যাচে আমরা অংশগ্রহণ করেনি; যদিও স্বপ্ন ছিল ফাইনালের চ্যাম্পিয়ন ট্রফিটি আমাদেরই হবে।

শত অপমান, মাইর, লাথি, পিস্তলের গুলির ভয়, রামদা দিয়ে কোপানোর হুমকির পরেও একদম মাথা ঠান্ডা রেখে হাসিমুখে সব সহ্য করে অসীম সাহসের সাথে সব মোকাবেলা করে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়কে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দিয়ে জয়ী হয়ে তবেই ফিরেছি। গোলকিপার  নিতুল শর্মাকে বিশেষভাবে ধন্যবাদ প্রায় গোল হয়ে যাওয়া কয়েকটি বল সেইভ করার জন্য। শুভ, মাহফুজ, চিং, জনি ,মাসুম, সালমান, রুবেল, বুলবুলসহ টিমের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবাইকে অসংখ্য ধন্যবাদ। সবশেষে ঢাবির অমর একুশে হলের আব্দুল জব্বার রাজ এবং এহসানকে বিশেষ ভাবে ধন্যবাদ ।

একটা প্রবাদ আছে, খেলার মাঠে সবাই সমান। খেলা মানুষের মাঝে সম্প্রতি, ভ্রাতৃত্ব তৈরি করে; সেখানে ঢাবির কতিপয় ছাত্রের এমন আচরণ হতাশাব্যঞ্জক।ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অতীত ঐতিহ্য ফিরে আসুক!

লেখক: হাসান প্রিন্স, অধিনায়ক, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ফুটবল টিম।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')