features
 01 May 18, 08:15 AM
 144             0

মামলা তদন্তে সন্তুষ্ট না হলে করনীয়

মামলা তদন্তে সন্তুষ্ট না হলে করনীয়

মোঃ সাব্বির রহমান, পুলিশ পরিদর্শক

মোঃ সাব্বির রহমান, পুলিশ পরিদর্শক:  অপরাধ সংঘটনের পর বিচার প্রার্থীর প্রথম কাজ হলো থানায় কিংবা আদালতে মামলা দায়ের করা। কোথাও কোন ফৌজদারি অপরাধ যেমন খুন, মারামারি, ডাকাতি, চুরি ইত্যাদি সংঘঠিত হলে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তির পক্ষে যে কেউ থানায় সংবাদ দিতে পারে। অভিযোগ (এজাহার) ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তি নিজে বা তাঁর পরিবারের কেউ কিংবা অন্য কোনো ব্যক্তি, যিনি ঘটনা ঘটতে দেখেছেন কিংবা ঘটনা সম্পর্কে অবগত আছেন, তিনি থানা কিংবা আদালতে অভিযোগ (এজাহার) দায়ের করতে পারেন। মূলত এজাহারের মাধ্যমে থানায় মামলা রুজু করা হয়। আর আরজির মাধ্যমে আদালতে মামলা রুজু করা হয়। থানা কিংবা আদালতে সেখানেই মামলা দায়ের করা হোক না কেন একজন উপ- পুলিশ পরিদর্শক বা তার উর্ধ্বতন কোন পুলিশ অফিসার তদন্তকারী কর্মকর্তা হিসাবে মামলাটি তদন্ত করবেন। পুলিশের দায়িত্ব হলো সর্বোচ্চ ৯০ দিনের মধ্যে তদন্ত কাজ সম্পন্ন করা। অপরাধ সংক্রান্ত মামলার বিচারের জন্য আসামীদের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ প্রমাণ করতে ঘটনার সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্ত হওয়া অত্যাবশ্যক বিধায় ঘটনা বা অপরাধের মাত্রার ওপর নির্ভর করে প্রয়োজনে পুলিশ তদন্তের সময়সীমা বৃদ্ধি করতে পারেন। বিট্রিশ আমল হতে পুলিশের বিরুদ্ধে প্রভাবমুক্তভাবে তদন্ত রিপোর্ট দাখিল না করার অভিযোগ রয়েছে। পক্ষপাতহীন একটি তদন্ত রিপোর্ট একদিকে যেমন মামলাটিকে একটি শক্ত ভিত্তির ওপর দাঁড় করিয়ে দিতে পারে ঠিক তেমনি তদন্ত প্রক্রিয়া আসামীদের দ্বারা কোনভাবে প্রভাবিত হলে তা পুরো মামলার মোড় ঘুরিয়েও দিতে পারে। সাধারণত বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায় রাজনৈতিক, সামাজিক প্রভাব খাটিয়ে অথবা অনৈতিক আর্থিক লেনদেন মাধ্যমে অভিযুক্ত পক্ষ অভিযোগ থেকে রেহাই পেতে পুলিশকে প্রভাবিত করে। তবে অভিযুক্ত আসামীদের অপরাধ প্রমাণে প্রশ্নাতীত তদন্ত রিপোর্ট দাখিল করতে পুলিশের লোকবল, সময়ের, অবকাঠামোর, আনুষঙ্গিক দ্রব্যাদির যেমন অভাব রয়েছে তেমনি অনেক পুলিশের অপরাধ তদন্তে যথেষ্ট প্রশিক্ষণ, দক্ষতা, নিষ্ঠা, সততা ও কর্মউদ্দীপনা পরিলক্ষিত হয় না একথাও অস্বীকার করা যাবে না। যে কারনে হোক মামলা তদন্ত শুরু হওয়ার পর সঠিক তদন্ত না হলে; সে ক্ষেত্রে সংক্ষুদ্ধ নাগরিক হিসাবে আপনার করনীয় বিষয়গুলি তুলে ধরা হলো।

পুলিশি প্রতিবেদনঃ
অপরাধের তদন্ত শেষে বাদীর অভিযোগ বিষয়ে আদালতে দাখিলকৃত প্রতিবেদনের নামই পুলিশি প্রতিবেদন। ফৌজদারী কার্যাবিধিনুসারে তদন্ত শেষ হলে তদন্তকারী কর্মকর্তা দুই ধরনের রিপোর্ট কোর্টে দাখিল করতে পারেন। তদন্ত শেষে যদি তদন্তকারী কর্মকর্তা দেখেন মামলাটি ভিত্তিহীন তাহলে চুড়ান্ত রিপোর্ট দাখিল করেন অর্থাৎ মামলা এখানেই শেষ। আর তদন্ত শেষে যদি অপরাধ হয়েছে নিশ্চিত হন তা হলে চার্জশিট দাখিল করেন অর্থাৎ অপরাধীর বিচার প্রক্রিয়া শুরু হবে।

পুলিশ রিপোর্ট দাখিল পূর্ববর্তী করনীয়ঃ
তদন্তকালে কিংবা পুলিশ রিপোর্ট দাখিলের পূর্বে যদি প্রতিয়মান হয় যে, মামলা সঠিকভাবে তদন্ত সম্পন্ন হচ্ছে না। মামলার তদন্ত সঠিক পথে না এগুলে বিচলিত হয়ে নিজেকে অসহায় ভাবার কোনো কারণ নেই। কারণ তদন্তের অগ্রগতিতে সন্তুষ্ট না হলে সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ তদন্তকারী কর্মকর্তাকে পরিবর্তন করতে পারেন। সিটিজেন চার্টার অনুযায়ী যে কেউই এ রকম পরিস্থিতিতে সংশ্লিষ্ট সার্কেল এএসপি কিংবা পুলিশ সুপারের সাথে সরাসরি দেখা করে বিস্তরিত জানান। সার্কেল এএসপি কিংবা পুলিশ সুপারের কাছে আপনার অভিযোগ আদ্যোপান্ত খুলে বলে প্রয়োজনে মামলাটি অন্য কোন তদন্তকারী কর্মকর্তা কিংবা কোন তদন্ত ইউনিট (যেমন পিবিআই/সিআইডি/ডিবি) মাধ্যমে তদন্ত করার জন্য লিখিত দরখাস্তের মাধ্যমে পুলিশ সুপারের নিকট আবেদন করতে পারেন। আপনার অভিযোগের প্রেক্ষিতে মামলাটি অন্য কোন তদন্তকারী কিংবা পিবিআই/সিআইডি/ডিবি মাধ্যমে তদন্ত করার জন্য নির্দেশ প্রদান করতে পারেন। অন্যথায় আপনার অভিযোগের কোনো ভিত্তি আছে কি-না, তা পরীক্ষা করার উদ্দেশ্যে নিজে কিংবা কোন পুলিশ অফিসারকে দিয়ে তদন্ত করত আইনগত ব্যবস্থা নিতে পারেন।

পুলিশ রিপোর্ট দাখিল পরবর্তী করনীয়ঃ
পুলিশ তদন্ত শেষে অভিযোগপত্র কিংবা চূডান্ত রিপোর্ট দাখিল করলে বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেট তা গ্রহণ করতে বাধ্য নন। কোন মামলায় পুলিশ আসামীদের বিরুদ্ধে ফাইনাল রিপোর্ট কিংবা অভিযোগপত্র দাখিল করলেও হতাশার কিছু নেই। তদন্তে অযাচিত প্রভাব পড়তে পারে জেনে আইনেও তাই তা থেকে প্রতিকার পাওয়ার বিধান রাখা হয়েছে। পুলিশ প্রতিবেদনে আসামীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ সঠিকভাবে উপস্থাপিত না হলে বিচলিত না হয়ে অথবা নিজেকে অসহায় মনে না করে নারাজি আবেদন দাখিলের আশ্রয় নিতে পারেন। মামলা তদন্ত শেষে তদন্তকারী কর্মকর্তা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে অপরাধ প্রমানিত হয়েছে মর্মে অভিযোগপত্র অথবা অভিযোগের কোনো ভিত্তি খুঁজে না পেলে পুলিশ চুড়ান্ত রিপোর্ট দাখিল করলে, যদি আপনি মনে করেন আপনার করা মামলায় পুলিশ নিরপেক্ষ এবং পক্ষপাতহীনভাবে তদন্ত সম্পন্ন করেনি তাহলে সে তদন্তের বিরুদ্ধে আপত্তি এবং অসন্তুষ্টি জানিয়ে সংশ্লিষ্ট আদালতে একজন আইনজীবীর মাধ্যমে দরখাস্তাকারে নারাজি আবেদন করতে পারেন। আপনার নিকট যদি পুলিশ রিপোর্ট প্রভাবিত হওয়ার স্বপক্ষে যথেষ্ট প্রমাণাদি থেকে থাকে তবে তাও নারাজি দরখাস্তের সাথে সংযুক্ত করে ম্যাজিস্ট্রেট বরাবর পুনরায় অথবা অধিকতর তদন্তের আবেদন জানাতে পারেন। অর্থাৎ পুলিশ প্রতিবেদনে কেন সন্তুষ্ট নন, আদালতে সে কারণ দর্শিয়ে অভিযোগটির পুনঃতদন্তের আবেদন করতে পারেন। আপনার নিকট থেকে আবেদন প্রাপ্ত হয়ে ম্যাজিস্ট্রেট আসামী পক্ষ এবং রাষ্ট্রপক্ষ শুনানি করে যদি মনে করেন সংশ্লিষ্ট ঘটনার ক্ষেত্রে আসামীদের বিরুদ্ধে চূড়ান্ত প্রতিবেদন না দিয়ে অভিযোগপত্র দেয়া উচিত ছিল অথবা তদন্ত রিপোর্ট থেকে ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত কোন আসামীর নাম বাদ পড়েছে অথবা কারও নাম যোগ হওয়া উচিত ছিল তবে তিনি নারাজি দরখাস্তখানির গুরুত্ব বিবেচনা করে সেটিকে নালিশি দরখাস্ত হিসেবে গণ্য করে বিষয়টি তৎক্ষণাৎ তাঁর আদালতে নালিশি মামলা (ঈড়সঢ়ষধরহঃ ঈধংব) হিসেবে নথিবদ্ধ করে আবারো ঘটনা তদন্তে আদেশ দিতে পারেন, কিংবা অভিযোগের ঘটনাটি পুনরায় শুরু থেকে তদন্ত (জব-রহাবংঃরমধঃরড়হ) করার অথবা অধিকতর তদন্ত (ঋঁৎঃযবৎ ওহাবংঃরমধঃরড়হ) করতে থানার অফিসার ইনচার্জ অথবা অন্য কোন তদন্তকারী সংস্থাকে নির্দেশ দিতে পারেন। অনেকে ক্ষেত্রে আদালত বিষয়টি নিশ্চিত হতে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ দিয়ে স্থানীয় তদন্তও করাতে পারেন। তবে ফরিয়াদির আবেদনের সত্যতা নিরূপণে আবেদনকারীকে শপথগ্রহণপূর্বক পরীক্ষা করে অভিযোগের সত্যতা যাচাই করে সন্তুষ্ট হলে আসামীর বিরুদ্ধে সমন জারি করতে পারেন অথবা ক্ষেত্র বিশেষে গ্রেফতারি পরোয়ানাও জারি করতে পারেন কিংবা আদালত চাইলে অপরাধের নিরপেক্ষ তদন্তের স্বার্থে তিনি নিজে বা তাঁর অধস্তন কোন ম্যাজিস্ট্রেটকে দিয়ে বিচার বিভাগীয় তদন্ত করাতে পারেন। বিচার বিভাগীয় তদন্তে অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত হলে তখন আসামীর বিরুদ্ধে সমন জারি অথবা গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করতে পারেন। মামলাটি ঠিকমতো তদন্ত করা হয়েছে কিনা তা যাচাই করতে ম্যাজিস্ট্রেট মামলার বিভিন্ন নথিপত্র, কেস ডায়েরি ইত্যাদি আমলে নিতে পারেন। উভয় পক্ষকে শুনে এবং মামলার প্রয়োজনীয় সকল নথিপত্র যাচাই করে ম্যাজিস্ট্রেট যদি মনে করেন পুলিশি তদন্তের বিরুদ্ধে নারাজির কোন ভিত্তি নেই তবে তিনি নারাজি দরখাস্ত খারিজ করে দিয়ে পুলিশি তদন্তের ওপর ভিত্তি করে মামলা নিষ্পত্তি করতে পারেন। নারাজি আবেদন খারিজ হলে খারিজাদেশের বিরুদ্ধে আবেদনকারী ৬০ দিনের মধ্যে দায়রা জজ আদালতে অথবা হাইকোর্ট বিভাগে রিভিশন আবেদন দায়ের করতে পারেন। আর যদি নারাজি আবেদন অগ্রাহ্য করে ম্যাজিস্ট্রেট আসামীর বিরুদ্ধে চার্জ গঠন না করেই সরাসরি আসামীকে মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়ে দেন তবে আবেদনকারী বিষয়টি নিয়ে পুনরায় নালিশি মামলা রুজু করতে পারেন থানায় নতুন করে এজাহার দায়ের করতে পারেন।

প্রভাব-প্রতিপত্তি খাটিয়ে আসামীপক্ষ পুলিশি প্রতিবেদন থেকে রেহাই পেলেও পুলিশের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ কিংবা ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে আপনি ঘটনা প্রতিষ্ঠিত করতে পারলে ন্যায় বিচার পাওয়া থেকে বঞ্চিত হবেন না। কারণ আসামী আইনের ফাঁক গলিয়ে পালাতে চাইলেও আইনই অবিচারের পথ রুদ্ধ করে ন্যায় বিচারের দুয়ার উন্মুক্ত করেছে। তবে আদালতের কাছে যদি প্রমাণিত হয় কেউ অযথা, মিথ্যা কিংবা হয়রানিমূলকভাবে নারাজি দিয়েছে তবে তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে পারে। তাই ঘটনা সম্বন্ধে নিশ্চিত না হয়ে অযথা নারাজি দেয়াও ঠিক নয়। তদন্তকালীন সংশ্লিষ্ট তদন্তকারী কর্মকর্তার কোন গাফিলতি প্রমাণিত হলে সংশ্লিষ্ট পুলিশ কর্তৃপক্ষ কিংবা আদালত তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে আদেশ দিতে পারেন অথবা ওই পুলিশ কর্মকর্তার কাজের মূল্যায়নের বার্ষিক গোপনীয় প্রতিবেদনে বিষয়টি সংযুক্ত করতে তার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে আদেশ দিতে পারেন।

জনসচেতনায়- মোঃ সাব্বির রহমান, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত), বাঞ্ছারামপুর মডেল থানা, ব্র্রাহ্মণবাড়িয়া।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')