health
 09 Feb 18, 08:31 AM
 122             0

নিঃসন্তান দম্পতিদের জন্য সুখবর।।এবার পরীক্ষাগারেই বেড়ে উঠবে ডিম্বাণু

নিঃসন্তান দম্পতিদের জন্য সুখবর।।এবার পরীক্ষাগারেই বেড়ে উঠবে ডিম্বাণু

হেলথ ডেস্কঃ ব্রিট্রেন ও আমেরিকার গবেষকদের যৌথ উদ্যোগে এবার হাসি ফুটবে নিঃসন্তান দম্পতিদের মুখে৷শুধুমাত্র স্টেম সেল ব্যবহার করে খুব শিগগিরই কৃত্রিম উপায়ে মানব ভ্রূণ তৈরি করা সম্ভব হবে বলে বিজ্ঞানীরা আশা প্রকাশ করছেন।যুক্তরাষ্ট্রের কেমব্রীজ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা ভ্রূণ নিয়ে এ গবেষণা করছেন।শুধুমাত্র স্টেম সেল ব্যবহার করে ইঁদুরের ভ্রূণ তৈরিতে সাফল্যের পর মানবদেহের ডিম্বাণু নিয়ে এই পরীক্ষাও সাফল্যের মুখ দেখেছে।গবেষণায় ইঁদুরের দুই ধরনের স্টেম সেল ব্যবহার করা হয়।জীবন্ত ওই ভ্রূণটি তৈরি হতে সময় লেগেছে মাত্র চার দিন।এর আগে ১৯৯৬ সালে এডিনবরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রথম ক্লোন করা প্রাণী ডলি নামের একটি ভেড়ার জন্ম দিয়েছিলো।

এর আগেই গবেষকরা বলেছিলেন, মানুষের জন্মের জন্যেও এখন আর শুক্রাণু ও ডিম্বাণুর ওপর নির্ভর করতে হবে না। কৃত্রিম উপায়ে জরায়ুর পরিবেশ তৈরি করে, বড় করা হবে নিষিক্ত ডিম৷ মানবদেহের যেকোনো কোষ থেকেও হয়তো একজন মানুষের জন্ম হতে পারে। এ গবেষণাকে যুগান্তকারী ঘটনা হিসেবে উল্লেখ করা হচ্ছে।কারণ বিজ্ঞানীরা হয়তো এই একই উপায়ে ল্যাবরেটরিতে মানুষের ভ্রূণ তৈরি করতে সক্ষম হয়েছেন৷তবে এরকম কোন উদ্যোগ নেওয়া হলে সেটা বিতর্কের মুখে পড়তে পারে, কারণ এখানে অনেক নীতি- নৈতিকতার বিষয়ও জড়িত।

ল্যাবরেটরিতে ভ্রূণ তৈরির চেষ্টা করে বিজ্ঞানীরা ব্যর্থ হন।কিন্তু এবার বিজ্ঞানীরা দেখলেন, ট্রফোব্লাস্ট স্টেম সেল ব্যবহারের কারণে এই দুটো সেলের মধ্যে যোগাযোগ হয় এবং এই দুটো কোষ মিলেই সিদ্ধান্ত নেয় তাদের ভবিষ্যতের ব্যাপারে।এবং তখনই সেটা সফল হয়।প্রযুক্তির সাহায্যে ইঁদুরের স্টেম সেলের জিনে কিছু পরিবর্তন ঘটিয়ে এ কৃত্রিম ভ্রূণ তৈরি করা হয়েছে।এর সঙ্গে ব্যবহার করা হয়েছে ট্রফোব্লাস্ট স্টেম সেল যা স্বাভাবিক গর্ভধারণের প্রক্রিয়ার সময় প্লেসেন্টাতে তৈরি হয়।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')