international
 06 Dec 18, 05:19 AM
 8             0

পঞ্চায়েত নির্বাচনের মধ্য দিয়েই আসামের রাজনীতিতে তৃণমূলের প্রবেশ॥

পঞ্চায়েত নির্বাচনের মধ্য দিয়েই আসামের রাজনীতিতে তৃণমূলের প্রবেশ॥

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ আসামের নাগরিকপঞ্জি নিয়ে ভারতজুড়ে রাজনৈতিক বিতর্কের মধ্যেই রাজ্যটির রাজনীতিতে নেমে পড়লেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। গতকাল বুধবার থেকে আসামে শুরু হয়েছে দুই দফার পঞ্চায়েত নির্বাচন। আর এই নির্বাচনে প্রথমবারের মতো অংশগ্রহণ করছে মমতার দল তৃণমূল কংগ্রেস। এ ব্যাপারে তৃণমূলের এক নেতা বলেন,ত্রিস্তর পঞ্চায়েতের সর্বোচ্চ স্তর জেলা পরিষদের ৪২০টি আসনের মধ্যে ১৮০টি আসনে আমরা প্রার্থী দিয়েছি। প্রথমবারের মতো অংশগ্রহণ করে ৪০ শতাংশের বেশি আসনে প্রার্থী দেওয়া কম কথা নয়। গত ৩০ জুলাই নাগরিকপঞ্জি প্রকাশ হয় এবং এর পর থেকে মমতার রাজনৈতিক কার্যক্রমের মধ্যে আসামের গুরুত্ব ক্রমে বাড়ছে। নাগরিকপঞ্জি প্রকাশের পরপর যে বিতর্ক শুরু হয়, ওই সময়েই মমতা তাঁর এক প্রতিনিধিদল আসামে পাঠান। কিছুদিন আগে আসামে বাঙালি নিধনের পরও তৃণমূলের নেতারা নিহতদের পরিবারের কাছে যান।

আসামে বাঙালিদের ওপর যে অত্যাচার চলছে,দিদি তার বিরোধিতা করতে বদ্ধপরিকর। প্রথমে নাগরিকপঞ্জি থেকে ৪০ লাখ বাঙালির নাম বাদ দেওয়া হয়। তারপর হলো বাঙালি নিধন। আসামের বাঙালিরা যাতে নিরাপত্তাহীনতায় না ভোগে,তাই আমরা তৃণমূলের তরফ থেকে নির্বাচনে নেমেছি। বলেন এক তৃণমূল নেতা। যদিও তৃণমূল ত্রিস্তর পঞ্চায়েতের বাকি দুই স্তরে গ্রাম পঞ্চায়েত ও আঞ্চলিক পঞ্চায়েতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে না, আগামী দিনে আসাম নিয়ে অনেক পরিকল্পনা রয়েছে মমতার দলের। তবে ওই নেতা জানান,আসামের বাঙালি অধ্যুষিত এলাকাগুলো থেকে লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূল প্রার্থী দেবে। আজ প্রথম দফার নির্বাচনের পর ডিসেম্বরের ৯ তারিখে দ্বিতীয় দফার নির্বাচন। ভোট গণনা হবে ডিসেম্বরের ১২ তারিখে। মমতার আসাম রাজনীতির পেছনে অবশ্য আসল উদ্দেশ্য হলো বিজেপি বিরোধিতা। পশ্চিমবঙ্গে মমতাকে বিপদে ফেলতে বিজেপি ডিসেম্বর মাসে ৩ টি রথযাত্রার আয়োজন করেছে এবং সে উপলক্ষে রাজ্যে আসছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')