international
 06 Dec 18, 05:38 AM
 2             0

ব্রেক্সিট ইস্যুতে ভোটে হেরে এমপিদের মুখোমুখি ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টেরেসা মে॥  

ব্রেক্সিট ইস্যুতে ভোটে হেরে এমপিদের মুখোমুখি ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টেরেসা মে॥   

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ ব্রেক্সিট নিয়ে আবারও ব্যর্থ হলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টেরেসা মে। হাউস অব কমন্সের গত মঙ্গলবারের এই পরাজয় তাঁর সরকারকেই ঝুঁকির মধ্যে ঠেলে দিতে পারে। অথবা পাল্টে দিতে পারে ব্রেক্সিটের গতিপথ। গতকাল বুধবার হাউস অব কমন্সে এমপিদের প্রশ্নের জবাব দেওয়ার কথা ছিল মের। ব্রেক্সিট বিষয়ে আগামী ১১ ডিসেম্বর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাবে হাউস। প্রধানমন্ত্রী মে সমর্থনের জন্য উত্তর আয়ারল্যান্ডের দলের ওপর নির্ভর করছিলেন। তবে গত মঙ্গলবার দেখা যায়,তারাও বিরোধী লেবার পার্টির সঙ্গে যোগ দিয়ে মের ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে আনা প্রস্তাবের বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছে। ফলে সরকার পরিচালনার ব্যাপারে তাঁর দক্ষতা নিয়েই প্রশ্ন উঠেছে। এদিকে নিজ দল কনজারভেটিভ পার্টির ২৫ এমপি তাঁর প্রস্তাবের বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছেন। কনজারভেটিভ দলের সমর্থক ডেইলি টেলিগ্রাফ তাদের শিরোনাম করেছে,মের নিয়ন্ত্রণ হারানোর দিন। গত মঙ্গলবার ব্রেক্সিট নিয়ে দুই দফা ভোটাভুটি হয়। এর মধ্যে একটি ছিল প্রস্তাবটি পূর্ণাঙ্গরূপে প্রকাশে মন্ত্রীদের ব্যর্থতার বিষয়ে।


আর দ্বিতীয়টি হচ্ছে এই প্রস্তাব ব্যর্থ হলে কী করা হবে সে বিষয়ে। সে ক্ষেত্রে ২১ দিনের মধ্যে সরকারকে এমপিদের জানাতে হবে ব্রেক্সিট বিষয়ে তাদের পরিকল্পনা কী। অন্যথায় তিনটি ঘটনা ঘটতে পারে প্রথমত ব্রিটেনের ফের আলোচনা শুরু করতে হবে,দ্বিতীয়ত ব্রেক্সিট নিয়ে আবারও গণভোট হবে আর সর্বশেষ ইইউতেই থেকে যাওয়া। গত মঙ্গলবারের এই ভোটাভুটির পর ডেইলি মেইল তাদের শিরোনামে লেখে,ডুবির মুখে ব্রেক্সিট। ব্রেক্সিট নিয়ে গত সোমবার টানা বিতর্ক শুরু করেন মে। তিনি এমপিদের প্রতি বিশেষভাবে অনুরোধ জানান,বহু মাস ধরে চলা ব্রেক্সিটের ফলাফলকে যেন তাঁরা ভেস্তে না দেন। তিনি বলেন দীর্ঘদিন ধরে এ আলোচনা চলছে। এটা আমাদের রাজনীতির জন্য ক্ষতিকর। আর জীবন সমঝোতা করেই চলে। ওই দিন আট ঘণ্টা ধরে চলা ওই বিতর্কে লেবার নেতা জেরেমি করবিন বলেন,এটা ব্রিটেনের জন্য একটি বিশাল ও ক্ষতিকর ব্যর্থতা। কনজারভেটিভ দলের আরেক নেতা এবং সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসন হুঁশিয়ার করে বলেন,ব্রিটেন ইইউয়ের ‘কার্যত উপনিবেশ’ হয়ে থেকে যেতে পারে। কনজারভেটিভ দলের বহু এমপি আবারও গণভোট আয়োজনে আগ্রহী। যেখানে ইইউয়ে থেকে যাওয়ার বিষয়টিও থাকবে।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')