international
 10 Feb 19, 04:57 AM
 11             0

ডলার নয়, তেল ও সোনা বিনিময়ের মাধ্যমে বাণিজ্য করবে ভেনেজুয়েলা-ইরান॥  

ডলার নয়, তেল ও সোনা বিনিময়ের মাধ্যমে বাণিজ্য করবে ভেনেজুয়েলা-ইরান॥   

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ মার্কিন নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ভেনেজুয়েলা ও ইরান বাণিজ্য করে থাকতে পারে, তেল ও সোনা বিনিময়ের মাধ্যমে। আর এ প্রক্রিয়ায় সহযোগিতা করে থাকতে পারে তুরস্ক। ভেনেজুয়েলার কাছ থেকে এক বছরে ৯০ কোটি ডলারের সোনা গেছে তুরস্কে। এই সোনার গন্তব্য কোথায় তা জানায়নি দেশটি। কিন্তু বিক্রি করে অর্থ হাতে পাওয়ার সুযোগ না থাকা সত্ত্বেও মার্কিন নিষেধাজ্ঞার শিকার আরেক দেশ ইরান দীর্ঘদিন ধরে ভেনেজুয়েলার কাছে তেল বিক্রি করছে। পাওনা অর্থ জমা হচ্ছে তুরস্কে। ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে ভেনেজুয়েলার সঙ্গে বাণিজ্য করা শুরু করে তুরস্কের সার্দেস নামের একটি প্রতিষ্ঠান। ওই সময় ভেনেজুয়েলা থেকে প্রতিষ্ঠানটি চার কোটি ১০ লাখ ডলারের সোনা আমদানি করে ভেনেজুয়েলা থেকে। ৫০ বছরের মধ্যে তুরস্ক ও ভেনেজুয়েলার মধ্যে এমন লেনদেন সেটাই প্রথম। এর পরের মাসে সার্দেস নামের প্রতিষ্ঠানটির ভেনেজুয়েলা থেকে সোনা আমদানির পরিমাণ বেড়ে হয় দ্বিগুণ। সার্দেসের কাছে যায় ভেনেজুয়েলার প্রায় ১০ কোটি ডলারের সোনা। ২০১৮ সালের নভেম্বর মাসে ডোনাল্ড ট্রাম্প ভেনেজুয়েলার ওপর সোনা রফতানিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার আগেই সার্দেস মোট ৯০ কোটি ডলারের সোনা সরিয়ে নিতে সমর্থ হয়। অথচ ৯০ কোটি ডলারের সোনা আমদানি করা সার্দেসের মূলধন ছিল মাত্র ১০ লাখ ডলার।

যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও ইরান শত শত কোটি ডলারের তেল বিক্রি করেছে ভেনেজুয়েলার কাছে। কিন্তু নিষেধাজ্ঞার কারণে সেই অর্থ তারা হাতে পায়নি। বরং তেল বিক্রির অর্থ জমা হয়েছে তুরস্কে। অতীতের অভিজ্ঞতা থেকে দেখা গেছে, ইরান সোনার বিনিময়ে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য করেছে। এই যে প্রক্রিয়া, ভেনেজুয়েলা সোনা দেবে বদলে ইরান তেল দেবে, তা বাস্তবায়নে যুক্ত থাকার অভিযোগে তুরস্কের রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন আর্থিক প্রতিষ্ঠান তুর্কি হাল্ক বানকাসি এএসের সাবেক প্রধানকে নিউ ইয়র্কের একটি আদালত অভিযুক্ত করেছে। তুরস্ক অবশ্য দাবি করেছে, ওই মামলা মিথ্যা প্রমাণের ওপর সাজানো। তবে তারা আরও বলেছে, তুরস্ক যুক্তরাষ্ট্রের এককভাবে আরোপিত নিষেধাজ্ঞা মেনে চলতে বাধ্য নয়। যুক্তরাষ্ট্রের কথায় তারা আন্তর্জাতিক সহযোগীদের সঙ্গে ব্যবসা বাণিজ্য বন্ধ করবে না। যুক্তরাষ্ট্রের শত্রুদের সহায়তা করার এমন ঘটনাতেই দুই দেশের এককালের মধুর সম্পর্ক তিক্ত হয়ে উঠছে। একদিকে তুরস্ক মার্কিন সমর্থিত কুর্দিদের দমনে সিরিয়ায় সেনা অভিযানের হুমকি দিচ্ছে। অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্র তুরস্কের দৃষ্টিতে সন্ত্রাসী ফেতুল্লাহ গুলেনকে আশ্রয় দিয়ে রেখেছে। তুরস্ক বারবার দাবি করা সত্ত্বেও তাকে ফেরত পাঠানোর আবেদনে সাড়া দেয়নি যুক্তরাষ্ট্র। এখন যুক্তরাষ্ট্র মনে করেছে, বাণিজ্যিক সম্পর্ক বাড়িয়ে তোলার মাধ্যমেই তুরস্ককে যুক্তরাষ্ট্রের স্বার্থের বিরোধিতা করা থেকে সরিয়ে আনা যাবে। এবিষয়ে হোয়াইট হাউসের জাতীয় নিরাপত্তা বিষয়ক মুখপাত্র গেরেট মার্কুইস মন্তব্য করেছেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্র ও তুরস্কের দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য বৃদ্ধির বিষয়টি নিয়ে ভাবছেন। তিনি মনে করেন, যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাণিজ্যের মাধ্যমে তুরস্ক যা পাবে তা মাদুরো কোনও দিনও দিতে পারবেন না।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')