lifestyle
 30 Jun 16, 12:36 AM
 303             0

জার্মানির অসাধারণ কিছু দর্শনীয় স্থান ঘুরে আসতে ভুলবেন না যেন

জার্মানির অসাধারণ কিছু দর্শনীয় স্থান ঘুরে আসতে ভুলবেন না যেন

জীবনযাপন ডেস্ক: জার্মানি শুধু দারুণ সব যন্ত্রপাতি ও উন্নত গাড়ির দেশ নয়, দেশটিতে রয়েছে অসাধারণ বহু দর্শনীয় স্থান। সম্প্রতি বিশ্বের সবচেয়ে পর্যটকবান্ধব দেশের মধ্যে তৃতীয় স্থান অর্জন করেছে জার্মানি। এ লেখায় তুলে ধরা হলো জার্মানির কিছু আকর্ষণ, যা সব পর্যটকেরই জেনে রাখা উচিত


১. মিউনিখের বিখ্যাত ক্যাথেড্রাল ফ্রাউয়েনকির্চির সিঁড়ি দিয়ে একেবারে শীর্ষে আরোহন করা যায়। সেখান থেকে শহরটি ছাড়াও দেখা যায় আল্পস পর্বত।

২. বিশ্বের সবচেয়ে প্রাচীন ভাঁটিখানা হলো ওয়েহেনস্টেফানস বিয়ার গার্ডেন। এটি ১০৪০ সালে প্রতিষ্ঠিত।

৩. দ্রুতগামী গাড়ি চলার জন্য বিখ্যাত রাস্তা হলো জার্মানির অটোবাহন। এখানে কোনো সর্বোচ্চ গতিসীমা নেই।


৪. ঠিক রূপকথার মতো দেখতে নিউসচেয়াস্টিন ক্যাসেল। এটি থেকেই ডিজনিল্যান্ড তাদের স্লিপিং বিউটি ক্যাসেল নির্মাণের অনুপ্রেরণা পেয়েছে।

৫. জার্মানির সবচেয়ে বড় ও প্রাচীন ক্রিসমাস মার্কেট হলো গ্লুহওয়েইন।

৬. জার্মানিতে রয়েছে প্রাচীন ঐতিহ্য অনুযায়ী তৈরি সুইমিং পুল। রয়েছে স্পা করার ব্যবস্থা। বাডেন-বাডেনে রয়েছে থার্মাল বাথ।

৭. মিউনিখের সার্ফাররা সেখানকার আইসার নদীর শাখা আইসব্যাচে সময় কাটান।

৮. মিউনিকের বিখ্যাত পাবলিক পার্ক হলো মিউনিখ ইংলিশ গার্ডেন। এতে রয়েছে গাছপালা, নৌকা চালানোর লেক ও পানাহারের ব্যবস্থা।

৯. জার্মানির ২৬১ মাইল দীর্ঘ রোমান্টিক রোড চলে গিয়েছে দারুণ কয়েকটি শহরের ভেতর দিয়ে। এ রাস্তা দিয়ে চললে পাওয়া যাবে জার্মান প্রাকৃতিক ও নানা শহরের দৃশ্য।

১০. মিউনিখে বিশ্বের সবচেয়ে বড় বিয়ার উৎসব হয়।

১১. জার্মান খাবারের মধ্যে অন্যতম বিখ্যাত হলো স্কিনাটজেল। এটি মূলত ব্রেডেড কাটলেট।

১২. প্রায় দুই হাজার বছরের পুরনো একটি শহরের নাম কোলন। এ শহরে রয়েছে দারুণ সব প্রাচীন ভবন, রাস্তা ও ভাঁটিখানা।

১৩. টেগার্নসি লেকটির চারপাশে রয়েছে আল্পস পর্বতমালা।

১৪. মিউনিখের ডয়েশ মিউজিয়াম বা জার্মান মিউজিয়াম হলো বিশ্বের সবেচেয় পুরনো ও বড় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর।

১৫. বাল্টিক সাগরের মাঝে একটি সাদা বালুর দারুণ বিচ রয়েছে রুগেনে।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')