literature
 17 Mar 16, 09:10 AM
 1139             0

কেমন হতে পারত নেতাজি সুভাষের স্বপ্নের ভারতবর্ষ........?

কেমন হতে পারত নেতাজি সুভাষের স্বপ্নের ভারতবর্ষ........?

পরেশ চন্দ্র দাস ,কলকাতা : "আমার মাথা নত করে দাও হে তোমার চরণ ধুলো র পরে "------নেতাজি সম্পর্কে লিখতে বসে প্রথমে গুরুদেব রবীন্দ্র নাথের কথাই সবার আগে মনে এলো । নেতাজি নেতাজির দেশে ফিরে এলে, ভারতে ফিরে এলে কেমন হত আমার দেশ এবিষয়ে সঠিক মূল্যায়ন করা একটু কষ্টসাধ্য । মনে পড়ছে নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসু একসময় বলে ছিলেন ------"স্বাধীনতার পর আমাদের দেশকে অন্তত পক্ষে দশ বছর ধরে ডিকটেটর শপের মধ্যে রাখতে হবে। " কারণ হিসেবে তিনি বলেছিলেন দুইশত বছরের বছরের বৃটিশ শাসনের কষাঘাত আমাদের চেতনার মেরুদন্ড ভেঙ্গে গুড়ি য়ে দিয়েছে । তাই আমরা না হতে পেরেছি বৃটিশ না হতে পেরেছি ভারতীয় । তাই সব কিছুরই একটা আ মুল পরিবর্তন দরকার। নেতাজি সুভাষ বুঝেছিলেন বৃটিশের মতো শক্তিকে এই দেশ থেকে তাড়ানো সম্ভব নয় । তাই বৃটিশ কে এই দেশ থেকে তাড়ানোর জন্য বাইরের যে কোন শক্তির দরকার । গান্ধিজীর নরমপন্থী নীতি কে সেই জন্য তিনি সমর্থন করেননি ।

জাপান, ও হিটলারের সহযোগিতা নিয়ে এদেশ বৃটিশ সরকার কে উৎখাত করার চেষ্টাকে আমাদের দেশের কমিউনিস্ট পার্টি একেবারেই ভালো ভাবে নেয়নি । সেইজন্য আমাদের কমিউনিস্ট পার্টি নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসু একসময় বলে ছিলেন "তোজোর কুকুর" সাম্রাজ্য বাদিদের দালাল । এই নেতাজি যদি ফিরে আসতেন তাহলে কি ভূমিকা নিতেন আ মা দের কমিউনিস্ট দল? যদি ও রাজনীতি তে শেষ কথা বলে কিছু নেই । আর আমাদের দেশে রাজনীতি তে একশো আশি ডিগ্রি ঘুরে যাওয়া টা কোন দোষের নয় ।যাইহোক, আমাদের দেশ ভারত বর্ষ এখন পৃথিবীর এক মাত্র বৃহত্তম ধর্মে নিরপেক্ষ রাষ্ট্র । এত বড় একটা দেশে আর যাইহোক, এক নায়ক তন্ত্র সম্ভব নয় । কিন্তু আমি এবং অনেকেই এবিষয়ে সহমত পোষণ করবেন যে নেতাজি আমাদের দেশ কে অন্তত পক্ষে একটা সময় পর্যন্ত ডিকটেটর শপের মধ্যে রাখতেন । আমাদের দেশের সংসদীয় গণতন্ত্র যে অচল হয়ে পড়েছে , এবিষয়ে তো কোন ভিন্ন মত নেই। অর্থ, পেশি শক্তি, রক্ত , মৃত্যু প্রতি টি নির্বাচনে অবশ্য ম ভাবি পরিণতি । ভোট সর্বস্ব সমাজ ব্যবস্থায় মূল্য বোধের চরম অবক্ষয় আমাদের এক বিরাট জিজ্ঞাসা চিহ্নের নীচে এনে দাঁড় করিয়েছে । কোথায় চলেছি আমরা । এ পথের শেষ কোথায়? কি আছে শেষে ? নেতাজি এ দেশে ফিরে এলে কেমন হত আমাদের দেশ ?

বিষয় টা খুব ই আপেক্ষিক । এক কথায় এর উত্তর দেওয়া খুবই কঠিন। নেতাজি ফিরে এলে আর কিছু না হোক আমাদের দেশে সংসদীয় গণতন্ত্রের নামে যে ভয়ংকর ছেলে খেলা চলছে সেটা নিশ্চয়ই নেতাজি বরদাস্ত করতেন না । আমাদের তৎকালীন দেশ নায়ক রা সরাসরি বলে ফেলা ভালো জওহরলাল নেহরু রা নেতাজি কে দুরে সরিয়ে রেখে দেশ ভাগের মতো যে ভয়ানক ভুল করেছিলেন তার জন্য আমাদের কে অনন্ত কাল মাসুল গুনে যেতে হবে ।আর যাইহোক নেতাজি থাকলে এই মারাত্মক ভুল হতে দিতেন না। দিল্লীর মসনদ এ যাতে আমাদের আত্মার আত্মীয় নেতাজি সুভাষ বসতে না পারে ন তার জন্য তাই হো কু বিমান দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন বলে রটিয়ে দিলেন । প্রজন্মের পর প্রজন্ম যেনে গেল একটা চুড়ান্ত মিথ্যা সংবাদ তাই হো কু বিমান দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে নেতাজি র ।এটা আমাদের দেশ বলেই সম্ভব হলো।

নেতাজি কে নিয়ে বিশ্বের কয়েকটি দেশের সঙ্গে যে চুক্তি (বলা ভালো ষড়যন্ত্র) হয়ে ছিলো তার জন্য নাকি নেতাজি সম্পর্কে কোন অন্তর্ধান রহস্য প্রকাশ করা যাবে না। নেতাজি ফিরে এলে রাজনীতির নামে দেশ জুড়ে যেই চুড়ান্ত অরাজকতা চলেছে সেটা প্রথমে সমূলে উৎপাটিত করতেন । কালো টাকা উদ্ধারের কথা তো দূরের কথা। এই সাদা টাকা যাতে কালো হতে না পারে সেই পথই তিনি বন্ধ করে দিতে ন। আমাদের দেশের সব রাজনৈতিক দলগুলি ই বলে থাকে গনতন্ত্রের মাধ্যমে সমাজ তন্ত্রে উত্তরণের কথা । সমাজ তন্ত্র তো এখন সোনার পাথর বাটি। সুভাষ চন্দ্র খুব সম্ভবত এক নায়ক তন্ত্রের মাধ্যমে সমাজ তন্ত্রের পথে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে। আমাদের দেশের সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো দুরারোগ্য আর্থ সামাজিক কাঠামো।
নেতাজি থাকলে প্রথমেই এই সর্বনাশা , ভঙ্গুর আর্থ সামাজিক কাঠামোর আমূল পরিবর্তন করতেন । এক শ্রেণীর মানুষ বসে আছেন পর্বত সমান অর্থের উপর । আর অন্য জন দিনান্ত পরিশ্রম করে ও সামান্য অর্থ রোজগার করতে মাথা ঠুকছে। নেতাজি ফিরে এ লে এই বৈষম্য দূর করতে বিলম্ব করতেন না ।

নেতাজি প্রতিটি ভারতবাসী র অন্তরের অন্তস্থ লে, নয়নের মনি কোঠায় জায়গা করে নিয়েছে । তাই কবির কথাতেই বলতে ইচ্ছে করছে---"নয়ন স মুখে তুমি নাই, নয়নের মাঝে নিয়েছ যে ঠাই "। এটা একটা দিক, আবার অন্য দিক থেকে দেখলে নেতাজি সুভাষ আমাদের দেশে ফিরলে একা নেতাজির পক্ষে পৃথিবীর বৃহত্তম গণতন্ত্র শাসিত রাষ্ট্রের আমূল পরিবর্তন করা কি আদৌ সম্ভব হতো ? বোধহয় না । কারণ নেতাজি কে সম্পূর্ণ আড়ালে রেখে রাতারাতি মধ্যরাতে দেশের শাসন হস্তান্তর যারা করতে পারলে ন । তারা আর যাই হোক, রাতারাতি নেতাজি কে দিল্লীর মসনদ ছেড়ে দিতেন এমন মনে করাটা ও বোকামি ছাড়া আর কিছু নয় । সাধোনীতার পর নেতাজি ভারতে ফিরে এলে আমার একান্ত ব্যক্তিগত আশঙ্কা ফিরে আসার পথটা

অতটা কিন্তু মসৃণ হতো না । কারণ যারা রাতারাতি দেশ ভাগের মতো ভয়ঙ্কর সর্বনাশ করলেন তারা আর যাই হোক, রাতারাতি নেতাজি কে দিল্লীর মসনদে বসিয়ে দিতেন , এরকম বালখিল্য চিন্তা ধারার সত্যি কোন অবকাশ নেই । আবার নেতাজি সুভাষ দেশে ফিরে এলে আসমুদ্র হিমাচল বাসী তার আদর্শে নতুন ভারত গড়ে তোলার জন্য ঝাঁপিযে পড়তেন , এবিষয়ে কোন সন্দেহ নেই । সুতরাং আমাদের দেশে একটা গৃহযুদ্ধ অনিবার্য ছিল ।সেই গৃহযুদ্ধের পরিণতি সম্পর্কে কিছু বলা সত্যিই কষ্ট কল্পিত , আপেক্ষিক ব্যাপার। যারা শামা প্রসাদ মুখার্জির মতো ব্যক্তিকে হত্যা করতে পারে তারা নেতাজি কে গুপ্ত হত্যার শিকার হতেন না এরকম কোনো নিশ্চয়তা ছিল কি ? বোধহয় না ।

নেতাজির অন্তর্ধান রহস্য বিষয়ে স্বয়ং নেতজি পরিবারের সদস্যদের মধ্যেই মতভেদ রয়েছে। নেতাজি কন্যা অনিতা বসু নিশ্চিত করেই বলেছেন জাপানের তাই হোকু বিমান দুর্ঘটনায় তার পিতা নেতাজি সুভাষ বসুর মৃত্যু হয়েছিল । অথচ নেতাজির ইস্ত্রি এবং আরো অনেকে এই বিষয়ে এখনো নিশ্চিত নন । প্রায় সর্বস্তরের মানুষের দাবি যত সমস্যা থাকুক না কেন , নেতাজি সম্পর্কে প্রকৃত সত্য প্রকাশ করা হোক শীঘ্রই । হিমালয় থেকে কন্যা কুমারীকা সমস্ত দিক থেকেই একটাই আওয়াজ --নেতাজি ......জয় হো.....নেতাজি জয়হো..... নেতাজি জয় হো .........

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')