sports
 07 Jan 19, 04:41 AM
 41             0

বছরের শুরুতেই মেসির ছন্দময় গোলে বার্সেলোনার জয়॥  

বছরের শুরুতেই মেসির ছন্দময় গোলে বার্সেলোনার জয়॥   

স্পোর্টস ডেস্কঃ দিনের প্রথম দুই ম্যাচে পয়েন্ট হারায় দুই প্রতিদ্বন্দ্বী দল রিয়াল মাদ্রিদ ও অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদ। টেবিলের শীর্ষে থাকা বার্সেলোনার সামনে সুযোগ আসে পয়েন্ট ব্যবধান বাড়িয়ে নেয়ার। সে সুযোগ কাজে লাগাতে ভুল করেনি আর্নেস্ত ভালভার্দের শিষ্যরা। বছরের প্রথম ম্যাচেই স্প্যানিশ লা লিগায় গেতাফের বিপক্ষে ২-১ গোলে জিতেছে টুর্নামেন্টের বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। টানা চতুর্থ বছরের মতো বার্সেলোনার হয়ে বছরের প্রথম গোল করেন লিওনেল মেসি। দলের জয়ে অন্য গোলটি আসে লুইস সুয়ারেজের পা থেকে। রবিবার রাতের ম্যাচটি গেতাফের বিপক্ষে হওয়ায় খানিক চাপেই ছিলো বার্সা। তবে সেই চাপ দূর করে লিড নিতে সময় খরচ করে কেবল ১৯ মিনিট। ম্যাচের প্রথম গোলটি করেন মেসিই। বাম পায়ের অসাধারণ শটে দলকে এগিয়ে দিয়ে এবারের লিগে নিজের ১৬তম গোলটি করেন মেসি। মিনিট বিশেক বাদে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন উরুগুইয়ান তারকা লুইস সুয়ারেজ। মেসির ফ্রি-কিক গেতাদের রক্ষণভাগ ঠিকঠাক বিপদমুক্ত করতে ব্যর্থ হলে বল পেয়ে যান সুয়ারেজ। দুর্দান্ত এক ভলিতে লিগে নিজের ১২তম গোলটি করেন তিনি। তবে প্রথমার্ধের বিরতির আগেই এক গোল শোধ করে ফেলে গেতাফে। সতীর্থের ক্রস ডি-বক্সের মধ্যে পেয়ে অনায়াসে বল জালে ঠেলে দেন স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড হাইমে মাতা। কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধে আর কোনো গোল না হওয়ায় বার্সেলোনার ২-১ গোলের জয়েই শেষ হয় ম্যাচ।

অন্যদিকে বছরটা একদমই ভালো কাটছে না রিয়াল মাদ্রিদের। বছরের প্রথম এওয়ে ম্যাচে ভিয়ারিয়ালের মাঠ থেকে ড্র নিয়ে ফিরলেও ঘরের মাঠেই বছরের প্রথম হারের মুখ দেখলো হ্যাটট্রিক চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ী দল রিয়াল মাদ্রিদ। সান্তিয়াগো বার্নাব্যু স্টেডিয়ামে রিয়াল সোসিয়াদাদের বিপক্ষে তারা হেরেছে ০-২ ব্যবধানে। ম্যাচের শুরুতেই রিয়াল মাদ্রিদকে বড় ধাক্কা দেন সোসিয়াদাদের ফুটবলার উইলিয়ান হোসে। নিজেদের ডি বক্সের ভেতর মেরিনোকে ফাউল করে বসেন কাসেমিরো। রেফারি সঙ্গে সঙ্গে পেনাল্টির বাঁশি বাজান। ২ মিনিটের মাথায় স্পট কিক থেকে সোসিয়াদাদকে ০-১ ব্যবধানে এগিয়ে দেন উইলিয়ান হোসে। ১৭ মিনিটে গোলের সুযোগ পেয়েছিল রিয়াল। কিন্তু প্রথমবার লা লিগার একাদশে সুযোগ পেয়ে বলটিকে সোসিয়াদাদের আর্জেন্টান গোলরক্ষক রুল্লির মাথার উপর দিয়ে মারেন ভিনিসিয়াস। পুরো প্রথমার্ধ বল নিজেদের দখলে রাখলেও তেমন কোন গোলের সুযোগ তৈরি করতে পারেনি রিয়াল। বিরতিতে যাওয়ার ১ মিনিটে আগে লুকাস ভাস্কুয়েজের শট গোলবারে লেগে ফিরে আসলে গোল বঞ্চিত হয় তারা। বিরতি থেকে ফিরে গোল শোধে মরিয়া হয়ে খেলতে থাকা রিয়াল মাদ্রিদের মরার উপর খারার ঘা হয়ে আসে লুকাস ভাস্কুয়েজের লাল কার্ড। ৬১ মিনিটে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখায় লাল কার্ড খেয়ে মাঠ ছাড়েন এই স্প্যানিশ। এর ঠিক দু মিনিট পরেই ম্যাচের সবচেয়ে আলোচিত মুহূর্তটি আসে। ৬৩ মিনিটে ভিনিসিয়াস বল নিয়ে ডি বক্সের ভেতর ঢুকলে সোসিয়াদাদের গোলরক্ষক তাকে ফেলে দিলেও দিলেও রেফারি পেনাল্টির সিদ্ধান্ত দেননি এমনকি ভিএআরের মাধ্যমেও দেখার সুযোগ মনে করেননি। পুরো ম্যাচ জুড়েই এটি নিয়ে হয়েছে নানা আলোচনা। উল্টো ম্যাচ শেষের সাত মিনিট আগে ৮২ মিনিটে বদলি হিসেবে নেমে রিয়াল মাদ্রিদের কফিনে শেষ পেরেকটি ঢুকিয়ে দেন রুবেন পার্দো। ফলে ০-২ ব্যবধানে হার নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয় রিয়ালকে। ইতোমধ্যে লা লিগায় ৬টি ম্যাচে হেরেছে তারা। লিগ টেবিলের পঞ্চম স্থানেও নেমে গেছে সোলারির দল। এমন পারফর্ম করতে থাকলে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে আগামী মৌসুমে অংশ নেওয়াটাও কষ্টকর হয়ে যাবে তাদের।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')