News71.com
 International
 20 Jun 22, 06:33 PM
 861           
 0
 20 Jun 22, 06:33 PM

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ম্যাক্রোঁ জয়ী হলেও সংসদে সংগরিষ্ঠতা ধরে রাখতে পারল না তার জোট॥  

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ম্যাক্রোঁ জয়ী হলেও সংসদে সংগরিষ্ঠতা ধরে রাখতে পারল না তার জোট॥   

নিউজ ডেস্কঃ বিশ্বের অন্যতম ক্ষমতাধর ও শিলপোন্নত দেশ ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়ের পরেও সংসদে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেল না ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর নেতৃত্বাধীন জোট। দেশটির বর্তমান প্রেসিডেন্টের জোট এনসেম্বল ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলি নির্বাচনে জিততে পারল না। তারা সবচেয়ে বেশি আসন পেলেও পার্লামেন্টে সংখ্যাগরিষ্ঠতা ধরে রাখতে পারেনি। পার্লামেন্টে সংখ্যাগরিষ্ঠতার জন্য ক্ষমতাশীল জোটের প্রয়োজন ছিল ২৮৯ আসন। কিন্তু ম্যাক্রোঁর জোট পেয়েছে মাত্র ২৪৫টি আসন। জ্যঁ লুক মেলাঞ্চের নেতৃত্বে জোট বেঁধেছেন সমাজবাদী, বামপন্থী ও গ্রিন পার্টি। তাদের বলা হচ্ছে নুপেস জোট। তারা ১৩১টি আসনে জিতেছেন। মেলাঞ্চ বলেছেন, এই ফলাফল দেখিয়ে দিচ্ছে, প্রেসিডেন্ট ব্যর্থ। অপরদিকে কট্টর দক্ষিণপন্থী ল্য পেন ছিলেন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ম্যাক্রোঁর মূল প্রতিদ্বন্দ্বী। তাঁর নেতৃত্বাধীন ন্যাশনাল রেলি পার্টি ৮৯টি আসনে জিতেছে। আগের পার্লামেন্টে পেনের দল পেয়েছিল আটটি আসন। ফলে আসনপ্রাপ্তির ক্ষেত্রে তারা বিপুল সাফল্য পেয়েছে এবং তৃতীয় স্থানে আছে।


এই নির্বাচনী ফলাফল শিল্পোন্নত এই দেশটির রাজনৈতিক পরিস্থিতিকে জটিল করে দিয়েছে। কেউই চূড়ান্ত সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাননি। ফলে রাজনৈতিক দিক থেকে যথেষ্ট অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। এখন দল ও জোটগুলি ক্ষমতা ভাগাভাগি করতে পারে। সাবেক ফরাসি প্রেসিডেন্ট ফ্রাসোয়া মিতেরঁর আমলে ১৯৮৮ থেকে ১৯৯১ পর্যন্ত এমনই হয়েছিল। দ্বিতীয় বিকল্প হল, রাজনৈতিক অচলাবস্থা এবং আবার নির্বাচন। গত এপ্রিলেই ম্যাক্রোঁ দ্বিতীয়বারের জন্য ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট হয়েছিলেন। কিন্ত তার পরেই অনুষ্ঠিত এই পার্লামেন্ট নির্বাচনে সেই ম্যাক্রোঁই নিজের জোটকে জেতাতে পারলেন না। এই নির্বাচনে দেশটির রক্ষণশীল এলআর ৬১টি আসন পেয়েছে। তারাই এবার কিং-মেকারের ভূমিকা নিতে পারে বলে ধারনা করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য দেশটির পার্লামেন্টে প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর নেতৃত্বাধীন জোট ক্ষমতায় না এলে, ম্যাক্রোঁ তাঁর সংস্কার কর্মসূচি সঠিকভাবে রূপায়ণ করতে পারবেন না। অবসরের বয়স বাড়াতে পারবেন না। ফলে অনেক ক্ষেত্রেই তাঁকে বাধার মুখে পড়তে হবে। ম্যাক্রোঁর মন্ত্রীরা বলেছেন, এই ফলাফল খুবই হতাশাজনক। তাঁরা প্রথম স্থানে আছেন ঠিকই, কিন্তু ফলাফল তাঁদের প্রত্যাশামতো হয়নি। জোটের শরিক নেতা এবং স্বাস্থ্যমন্ত্রী, সমুদ্র বিষয়ক মন্ত্রী এবং পরিবেশমন্ত্রী নিজ নিজ সংসদীয় আসনে পরাজিত হয়েছেন। সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং ম্যাক্রোঁর অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ সহযোগী ক্রিস্টোফে ক্যাস্টানের হেরে গেছেন।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন