News71.com
 Features
 30 May 17, 02:47 PM
 1025           
 0
 30 May 17, 02:47 PM

লাশ নিয়ে ঘৃণ্য রাজনীতি

লাশ নিয়ে ঘৃণ্য রাজনীতি

মো. আশরাফুল আলম: আমি দুর্ঘটনার খবর পাই ২৬ মে সকাল ৭ টায়, আর সকাল ৭.৩০ এর মধ্যেই আমি, আমজাদ স্যার, দেবাশিষ সবাই এনাম মেডিকেলে। সেখানে পৌছে শুনলাম রানা স্পট ডেড, আরাফাত মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লরছে, ডাক্তাররা তাকে বাঁচানোর সর্বাত্তক চেষ্টা করছে, জানলাম ওদের মেডিকেলে নিয়ে আসে তাবলিগ জামাতের বেশ কয়েকজন আলেম, সঙ্গত কারণেই তারা আমাদের চেয়ে তখনকার অবস্থাটা বেশি জ্ঞাত। বলে রাখা ভাল, রানা এবং আরাফাত দুজনই তাবলিগের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিল, সেদিন তারা তাবলিগের কাজে সময় দিয়েই ভোরবেলা বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিরছিল, সেকারণেই তার সঙ্গী সাথী তাবলিগ জামাতের প্রায় ২০-২৫ জনের আবেগও ছিল দেখার মত, তাদের সকলের একটাই বক্তব্য ছিল রানার লাশ দ্রুত গোসল করাতে হবে, দ্রুত তার বাবা মার কাছে পাঠিয়ে দিতে হবে, কারণ শরীয়াহ মেতাবেক লাশ যত দ্রুত সম্ভব কবর দিতে হবে।

আমাদের সাথে আমাদের অনেক ছাত্রছাত্রী তখন সেখানে উপস্থিত ছিল, তাদের একটাই দাবী ছিল লাশ যেন অবশ্যই ক্যাম্পাসে নেয়া হয়, কিন্তু রানা ও আরাফাত যাদের সাথে বেশি সময় ব্যয় করেছে সেই তাবলিগের সকলের দাবী ছিল, যত দ্রুত সম্ভব লাশ তার বাবা মার কাছে পাঠিয়ে কবর দেয়ার ব্যবস্থা করা। সিচুয়েশন যা ছিল তাতে তাদের কথা না শুনে উপায় ছিল না, কারণ তারা ধর্মীয় আইন কানুনের মত স্পর্শকাতর বিষয় নিয়ে কথা বলছিলেন, দেবাশিষকে ধমকাচ্ছিলেন সে যেন ইসলামের আইন কানুন নিয়ে কোন কথা না বলে।


এমতাবস্থায় আমরা তাদের বললাম যে রানার অভিভাবকরা যে ভাবে চাইবে তাই করা হবে, প্রশাসনের পক্ষ থেকে ফ্রিজিং গাড়ীর ব্যাবস্থা করা হলো, এরই মধ্যে আনুমানিক ৯ টার দিকে রানার চাচা চলে আসলেন। তিনি রানার বাবার বরাত দিয়ে বললেন, লাশ ক্যাম্পাসে নিতে চান না, দ্রুত পাবনায় নিয়ে যেতে চান । তারপর তাবলিগের লোকজন রানার লাশ ধোয়ানোর জন্য একটি মাদ্রাসায় নিয়ে যান, সঙ্গে রানার চাচাকে নেন। আমি, আমজাদ স্যার, ওবায়দুর স্যার আমরা তাদের গাড়ীর পিছন পিছন রওনা দেই। সেখানে পৌছানো থেকে শুরু করে লাশ ধোয়ানোতে প্রায় ১.৫ ঘন্টা সময় লাগে, এর মধ্যেও আমিসহ অন্যান্য স্যাররা রানার চাচাকে অনেকবার জিজ্ঞাসা করি লাশ ক্যাম্পাসে নিবেন কিনা, প্রতিবারই উত্তর তারা দ্রুত লাশ নিয়ে যেতে চান।


একারণেই আমরা হলের ছাত্রদের, রানার বিভাগের সবাইকে জানিয়ে দেই যে জানাজা এনামে হবে, তারা মোটামুটি সবাই সেখানে সকাল থেকেই উপস্থিত ছিল, এরপর আমরা লাশ নিয়ে এনামে আসি এবং সেখানেই রানার জানাজার ব্যাবস্থা করি, তারপর লাশ, সকল আত্নীয় স্বজন এবং ছাত্রছাত্রীদের রানার গ্রামের বাড়ীতে পাঠিয়ে দেয়া হয় । পথে সহকারী প্রক্টর এবং বিভাগীয় শিক্ষকদের উপস্থিতিতে জাবি গেইটে লাশ ৫ মিনিটের মত রাখা হয়, সেখানে বিভাগের ছাত্রছাত্রী (যারা এনামে যেতে পারেনি), অন্য বিভাগের ছাত্রছাত্রীরা তাকে শেষ দেখা দেখে। উল্লেখ করা প্রয়োজন, যারা আন্দলন করেছে তাদের একজনকেও এই দীর্ঘ সময় সেখানে পাওয়া যায়নি।

লাশ নিয়ে ঘৃণ্য রাজনীতি:
আমি যখন রানার লাশের ব্যবস্থা করে আরাফাত এর খোঁজ নিতে উপরে গেলাম তখন গিয়ে দেখি এক হৃদয় বিদারক দৃশ্য, আরাফাত তখনও আমাদের মাঝে আছে, কিন্তু ওর বিভাগের শিক্ষক লিজা, মৌ, বিভাগীয় প্রধান সবাই ফুপিয়ে ফুপিয়ে বাচ্চাদের মত করে কাঁদছে, পারভেজ স্যার ও আরও একজন শিক্ষক তাদের শান্তনা দেয়ার চেষ্টা করছেন । কিছুক্ষন পরই শুনলাম আরাফাত ক্লিনিকালি ডেড, এতে কান্নার শব্দ বেড়ে গেল, এরই মাঝে আরাফাতের মামা সেখানে এসে পৌঁছায়, ক্লিনিকালি ডেড শোনার পর তিনি আকাশ বাতাস কাপিয়ে চিৎকার করে কাঁদতে থাকেন, তার কান্না দেখে তাকে শান্তনা দেয়ার চেষ্টা করেন বিভাগীয় প্রধানসহ অন্য শিক্ষকেরা, এরই মাঝে আমি আইসিইউ তে গিয়ে দেখি আরাফাতের শরীর থেকে সব যন্ত্র খুলে নেয়া হচ্ছে, সে আর নেই।

তার মামাকে জানানো হলো, এরই মধ্যে আরাফাত এর বাবা মা টঙ্গী পর্যন্ত চলে এসেছেন বলে খবর এলো। তাদেরকে তখনও মৃত্যুর খবর জানানো হয়েছে কিনা তা সঠিক বলতে পারব না । পরপর দুটি মৃত্যু, নিতে পারছিলাম না। এরপর শুরু হল আবার একই আলোচনা, জানাজা ক্যাম্পাসে হবে কি না, আরাফাতের মামাকে বিভাগীয় প্রধানসহ সবাই জিজ্ঞেস করলেন? তিনি কি চান? তিনি বললেন, তারা ক্যাম্পাসে যেতে চাননা, তখনও আরাফাতের বাবা মা এসে পৌঁছাননি, এরই মধ্যে ভিসি ম্যাম, প্রো ভিসি স্যার চলে আসেন, আরাফাতের লাশ দেখে ম্যাম হু হু করে কেঁদে ফেলেন, প্রক্টর স্যারকে আবারও নির্দেশ দেন আরাফাতের বাবা মা যেভাবে চাইবে, যা চাইবে তাই যেন হয়, জাবি তে ঈমাম স্ট্যান্ডবাই থাকবেন।

এরপর এনামে ১০৬ নং রুমে এনামের একজন পরিচালকের উপস্থিতিতে আরাফাতের মামাকে জিজ্ঞেস করা হলো তিনি কি চান? প্রশাসন সর্বোচ্চ সহযোগীতা করতে প্রস্তুত, তিনি তখন বললেন তারাতারি লাশ নিয়ে যেতে চান, যদি সম্ভব হয় তাহলে যেন জানাজা এনামেই দেয়া হয় । তখন আনুমানিক ১২ টা হতে ১২:৩০ হবে, জুম্মার দিন নামাযের আগে আর ধোয়ানোর সময় নেই, তখন আরাফাতের চাচা বললেন অনেক দেরী হয়ে যাবে তাহলে, কিছু করা যায় কিনা। পারভেজ স্যার তার কথা শুনে নিজেই কাফনের কাপর আনলেন, ধোয়ানোর ব্যবস্থা করলেন এবং জুমার নামাযের পর জানাজার ব্যবস্থা করলেন।

এর আগেই আরাফাত এর বাবা মা পৌঁছান, তাদেরকে শুধু গগনবিদারী চিতকার করে কাঁদতেই দেখেছি, লাশের ব্যাপারে তাদের সিদ্ধান্ত কি ছিল তা নিজের কানে শোনার সুযোগ হয়নি, সব সিদ্ধান্ত আরাফাতের মামার কাছেই জানা, এমনকি আরাফাতের জানাজার সময়ও তার মামাই কথা বলেন, তার বাবা কথা বলার অবস্থায় ছিলেন না, এমনকি তিনি জানাজাও পড়েননি, কারণ বাড়িতে নিয়ে জানাজা পড়বেন, এখান থেকেও সবাই কিছুটা অনুমান করতে পারবেন এ অবস্থায়ও তারা ধর্মীয় অনুশাসন কিভাবে মেনে চলেন।
একারনেই আরাফাতের লাশও তার গ্রামের বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়া হয়।
প্রশাসন রানা ও আরাফাতের জানাজা ক্যাম্পাসে পড়তে দেয়নি বলে যারা অভিযোগ করেছেন আমি হলফ করে বলতে পারি তারা কেউ স্পটে ছিলেন না, ঘরে বসে মনগড়া বিবৃতি দিয়েছেন, লাশ নিয়ে ছাত্রদের সেন্টিমেন্টকে পুঁজি করে ঘৃন্য রাজনীতি করেছেন।

যারা উপাচার্যের বাসভবন ভাংচুর করেছে, শিক্ষকদের লাঞ্ছিত করেছে, তাদের একজনকেও এনামে দেখেছি বলে মনে করতে পারি না। যেসব শিক্ষক তাদের হয়ে ওকালতি করতে আসলেন, টকশোতে, ফেসবুকে বচন দিয়ে চলেছেন, তাদের কাছে আমার প্রশ্ন তারা কেউ কি একটি বারের জন্যও মেডিকেলে গিয়েছিলেন? যদি কেউ গিয়ে থাকেন তাহলে নাম উল্লেখ করে বলুন। আর যদি না গিয়ে থাকেন তাহলে প্রকৃত ঘটনা আপনারা কি করে জানেন?
আমার জানামতে যেসব শিক্ষক ছাত্রদের জন্য মমতা দেখাচ্ছেন, তারা কেউই মেডিকেলে যাননি, ঘরে বসে এই মমতার উদ্দেশ্য লাশ নিয়ে রাজনীতি করা ছাড়া আর কিছুই নয় বলে মনে করি।

আপনারা কেন কেউ মেডিকেলে যাননি, সকলের কাছে একটু ক্লিয়ার করবেন প্লিজ, নাহলে জনগণ আপনাদের বিচার করবে, ছাত্রছাত্রী যারা সারাক্ষণ সেখানে ছিল, যারা ছিল না, যাদেরকে মিসগাইড করেছেন, তারা এর বিচার করবে। আমি আমার প্রশ্নের উত্তরের অপেক্ষায় থাকলাম তথাকথিত সেইসব বুদ্ধজীবীদের কাছে, যদি উত্তর দিতে না পারেন তাহলে মনে করব দোষ স্বীকার করে নিয়েছেন।

লেখক: Asraful Alam (মো. আশরাফুল আলম, এ্যাসিসটেন্ট প্রফেসর, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়)।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন