News71.com
 Features
 21 Feb 21, 09:40 PM
 326           
 0
 21 Feb 21, 09:40 PM

ভাষা আন্দোলনের মাধ্যমেই বাঙালি জাতীয়তাবাদী চেতনার উন্মেষ ঘটে

ভাষা আন্দোলনের মাধ্যমেই বাঙালি জাতীয়তাবাদী চেতনার উন্মেষ ঘটে

ভাষা আন্দোলনের মাধ্যমেই বাঙালি জাতীয়তাবাদী চেতনার উন্মেষ ঘটে। ১৯৪৭ সালের ১৪ ও ১৫ ই আগস্ট দ্বিজাতিতত্ত্বের ভিত্তিতে পাকিস্তান ও ভারত নামে দুটি রাষ্ট্রের সৃষ্টি হয়। শুধুমাত্র ধর্মীয় কারণে বাংলাদেশ পাকিস্তান রাষ্ট্রের অন্তর্ভুক্ত হয়। কিন্তু পাকিস্তানের সাথে এদেশের ভাষা, সংস্কৃতি, কৃষ্টি ও সভ্যতার কোনো মিল ছিল না। যার ফল রাষ্ট্র ভাষা নিয়ে পশ্চিম পাকিস্তানীদের সাথে রাষ্ট্র আমাদের প্রথম দ্বন্দ্ব সৃষ্ট। সেই দ্বন্দ্ব থেকেই গড়ে ওঠে ভাষা অান্দোলন।

তৎকালীন ইসলামিয়া, বর্তমানে মাওলানা অাজাদ কলেজ থেকেই বৃটিশ বিরোধী অান্দোলনে ছাত্র সমাজকে একত্রিত করে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান গৌরব উজ্জল ভূমিকা পালন করেন। 

১৯৪৭ সালে ধর্মের ভিত্তিতে পাকিস্তান সৃষ্টির পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান উপলব্ধি করেছিলেন পশ্চিম পাকিস্তানের সাথে একত্রিত হয়ে বাঙালি জাতি তাদের অধিকার ফিরে পাবে না। 

১৯৪৭ সালে তরুণ শেখ মুজিব ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র হিসেবে প্রিয় মাতৃভূমির মানুষের ভাষার অধিকার ফিরিয়ে দিতে এবং তাঁর স্বপ্ন স্বাধীন বাংলাদেশ সৃষ্টি লক্ষে ১৯৪৮ সালের ৪ঠা জানুয়ারী বাংলাদেশ ছাত্রলীগ (তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রলীগ) প্রতিষ্ঠা করেন। 

এই ছাত্র সংগঠনের মাধ্যমে রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবির পাশাপাশি  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের ন্যায্য অধিকার অাদায়ের লক্ষ্যে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। ১৯৪৮ সালের ১১ই মার্চ কর্মসূচি পালনকালে তিনি প্রথম কারাবরণ করেন। এরপর থেকে বঙ্গবন্ধু পাকিস্তানি সামরিক জান্তার রোষানলে বারবাট কারাবরণ ও নির্যাতনের শিকার হন। 

১৯৪৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসে পূর্ব বাংলায় ‘তমুদ্দুন মজলিস’ নামে একটি সাংস্কৃতিক সংগঠন গড়ে ওঠে। তমুদ্দুন মজলিশ ‘ভাষা সংগ্রাম পরিষদ’ গঠন করে। বঙ্গবন্ধু এই সংগ্রাম পরিষদের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিলেন। ১৯৪৭ সালের ডিসেম্বরে করাচীতে উর্দুকে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা করার প্রস্তাব গ্রহণ করা হলে ভাষা সংগ্রাম পরিষদ প্রতিবাদ করে। ডিসেম্বরে ২১ দফা দাবি সংবলিত একটি ইশতেহার প্রণয়ন করা হয়, যার দ্বিতীয় দাবি ছিল রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই। 

১৯৪৮ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তান গণপরিষদের সদস্য ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত গণপরিষদের ভাষা হিসেবে ইংরেজি এবং উর্দুর পাশাপাশি বাংলা ব্যবহারের দাবি জানালে তার দাবি প্রত্যাখিত হয়। এর ফলে, ২৬ ও ২৯ ফেব্রুয়ারি ধর্মঘট পালিত হয়। ১৯৪৮ সালের ১১ মার্চ পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রলীগ ও গণতান্ত্রিক যুবলীগের সমন্বিত রাষ্ট্র ভাষা বাংলার দাবিতে সৃষ্ট অান্দোলনে নেতৃত্ব দেওয়ায় শেখ মুজিবুর রহমান গ্রেফতার হন। সেদিনের আন্দোলনে তিনি সাধারন ছাত্রদের সাথে নিয়ে প্রতিবাদ করেন। 

২১ মার্চ ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ বলেন, ‘উর্দুই হবে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা’ এসময় বঙ্গবন্ধু সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীদের সাথে নিয়ে প্রতিবাদ করে বলেন, ‘না’ বাংলাকেই রাষ্ট্রভাষা করতে হবে। ২৪ মার্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হলে জিন্নাহ আবারও উর্দুকে রাষ্ট্রভাষা করার কথা বললে বঙ্গবন্ধুসহ অন্যান্য শিক্ষার্থীদের  কন্ঠে ‘না, না, না’ শব্দ ধ্বনিত  হয়। এরপর থেকেই ভাষা আন্দোলনসহ গণতান্ত্রিক বিভিন্ন আন্দোলনে নেতৃত্ব দেওয়ার কারণে উপনিবেশিক সৈরাচারী  পাকিস্তান সরকার জাতির পিতাকে ১১ই সেপ্টেম্বর কারারুদ্ধ করে। পরের বছর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে আরও দুইবার গ্রেফতার করে। ১৯৫০ সালের ১ জানুয়ারি অাবারো তাঁকে গ্রেফতার করা হয়।

১৯৫২ সালে কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দী থাকা অবস্থায় বঙ্গবন্ধু অসুস্থ হয়ে পড়লে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এসময় ছাত্র সমাজের পক্ষ থেকে কয়েকজন নেতা বঙ্গবন্ধুর সাথে দেখা করতে যায়। সেদিন বঙ্গবন্ধুর পরামর্শে ২১ শে ফেব্রুয়ারি

এসেম্বলি ভবন ঘেরাও কর্মসূচি গ্রহণ করেন ছাত্র নেতারা। এদিন পাকিস্তান সরকার ১৪৪ ধারা জারি করে। ছাত্ররা ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে একটি মিছিল বের করে। পাকিস্তান সরকারের নির্দেশে ঐ মিছিলে নির্বিচারে গুলি করে হত্যা করা হয় রফিক, সফিক, সালাম, বরকত, জব্বার সহ অারো অনেককে।

এরপর মাতৃভাষার মর্যাদা রক্ষায় পাকিস্তানী শাসক গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে গণঅান্দোলন শুরু করেন বাঙালি জাতি। ফলশ্রুতিতে ১৯৫৪ সালের সাধারণ নির্বাচনে মুসলিম লীগের শোচনীয় পরাজয় হয়। 

১৯৫৬ সালে সংসদে পাকিস্তানের প্রথম সংবিধান প্রণীত হয়। এই সংবিধানের মাধ্যমে পাকিস্তান অধিরাজ্য ইসলামী প্রজাতন্ত্রী পাকিস্তান নাম গ্রহণ করে। ১৯৫৬ সালের প্রনীত সংবিধানের ২১৪ নং অনুচ্ছেদে বাংলা ও উর্দুকে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা হিসেবে উল্লেখ করা হয়।

ভাষার জন্য রক্তক্ষয়ী আন্দোলন এবং জীবনকে উৎসর্গ করা পৃথিবীর ইতিহাসে এ এক বিরল দৃষ্টান্ত । বিশ্বের আর কোনো দেশের মানুষকে ভাষার জন্য এভাবে বুকের তাজা রক্ত দিতে হয়নি। মূলত ভাষা আন্দোলনের মাধ্যমেই বাঙালি জাতীয়তাবাদী চেতনার উন্মেষ ঘটে।


বি এম মোজাম্মেল হক

সাংগঠনিক সম্পাদক বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও

সাবেক সংসদ সদস্য

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন