News71.com
 International
 05 Aug 22, 12:14 PM
 996           
 0
 05 Aug 22, 12:14 PM

মার্কিন ড্রোন হামলায় শীর্ষ তালিবান কমান্ডার হত্যার নেপথ্যে গোষ্ঠী দন্ধই দায়ী॥

মার্কিন ড্রোন হামলায় শীর্ষ তালিবান কমান্ডার হত্যার নেপথ্যে গোষ্ঠী দন্ধই দায়ী॥

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের শেরপুর মহল্লায় মার্কিন ড্রোন হামলায় নিহত হয়েছেন শীর্ষ তালিবান কমান্ডার ওসামা নি লাদেনের ঘনিষ্ঠ সহচর আয়মান আল জওয়াহিরি। তার লুকিয়ে থাকার খবর তালিবান গোষ্ঠীই মার্কিন প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগনকে দিয়েছে বলে জল্পনা চলছে। কাবুলের অভিজাত শেরপুর মহল্লায় লাদেনের উত্তরসূরি জওয়াহিরির লুকিয়ে থাকার খবর হক্কানি-বিরোধী তালিবান গোষ্ঠীই পেন্টাগনকে দিয়েছে বলে জোস জল্পনা তৈরি হয়েছে। এছাড়াও আল কায়দার শীর্ষনেতার বিরুদ্ধে এই মার্কিন ড্রোন হামলার নেপথ্যে পাক তালিবানের একাংশেরও হাত থাকতে পারে বলেও মনে করা হচ্ছে।

শুধু আল কায়দার শীর্ষনেতা আয়মান আল জওয়াহিরি নন, গত রবিবার কাবুলে আমেরিকার ড্রোন হামলায় নিহত হয়েছেন আফগানিস্তানের তালিবান সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সিরাজউদ্দিন হক্কানির পরিবারের কয়েক জন সদস্যও! শুক্রবার এমনই দাবি করেছেন, তাজিকিস্তানের আফগান রাষ্ট্রদূত মহম্মদ জাহির আকবর। পূর্বতন আশরফ গনি সরকারের আমলে নিযুক্ত এই আফগান কূটনীতিক বলেন, ‘‘কাবুল থেকে আমাদের কাছে আসা তথ্য বলছে, আমেরিকার ড্রোন হানায় হক্কানি পরিবারের সদস্যরা নিহত হয়েছে। ওই বাড়িটি হক্কানিদেরই ছিল।’’ ঘটনার পরে হক্কানিদের সকলেই কাবুল ছেড়ে চলে গিয়েছেন বলেও দাবি করেন জাহির। জাহিরের শুক্রবারের বক্তব্যের পর তালিবানের অন্তর্দ্বন্দ্বের দাবি আরও জোরাল হল। কারণ, তালিবানের অন্দরের সূত্র ছাড়া কাবুলের নির্দিষ্ট ঠিকানা খুঁজে বার করে আমেরিকার হেলফায়ার আর৯এক্স ক্ষেপণাস্ত্রের পক্ষে কার্যত অসম্ভব ছিল।

আফগানিস্তানে তালিবান নেতা তথা উপ-প্রধানমন্ত্রী এবং অর্থমন্ত্রী মোল্লা বরাদরের অনুগামীদের সঙ্গে সিরাজুদ্দিন হক্কানি গোষ্ঠীর সঙ্ঘাত ক্রমশই বাড়ছে। আর তালিবান প্রধানমন্ত্রী হিবাতুল্লা আখুন্দজাদার সরকারে জওয়াহিরির সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ ছিলেন আফগান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সিরাজুদ্দিন। ফলে নেপথ্যে হাত থাকার সম্ভাবনা রয়েছে বরাদর গোষ্ঠীর। জাওয়াহারির লুকিয়ে থাকার খবর ফাঁসের ঘটনায় সন্দেহভাজনের তালিকায় রয়েছেন, আফগান প্রতিরক্ষামন্ত্রী মোল্লা ইয়াকুব এবং আমির খান মুত্তাকিও। তাঁরা দু’জনেই পাকিস্তান-ঘনিষ্ঠ হক্কানির বিরোধী হিসেবে পরিচিত। প্রয়াত তালিবান প্রতিষ্ঠাতা মোল্লা ওমরের ছেলে ইয়াকুব মূলত হক্কানি গোষ্ঠীর বিরোধিতার কারণেই সংগঠনের প্রধান হতে পারেননি। অন্য দিকে, কাতারে শান্তি আলোচনায় তালিবান প্রতিনিধিদলের সদস্য মুত্তাকির সঙ্গে দীর্ঘ দিন ধরেই আমেরিকার গুপ্তচর সংস্থা সিআইএ-র ‘যোগাযোগ’ রয়েছে বলে ‘খবর’।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন