lifestyle
 18 Apr 20, 10:03 PM
 474             0

আতঙ্কিত না হয়ে সচেতন থাকুন ॥ সামান্য নিয়ম মেনেই ভয়ানক করোনাকে জয় করুন

আতঙ্কিত না হয়ে সচেতন থাকুন ॥ সামান্য নিয়ম মেনেই ভয়ানক করোনাকে জয় করুন

দীপু কুন্ডুঃ ব্যাকটেরিয়া পৃথিবীর অন্যতম একটি ক্ষুদ্র জীব যা খালি চোখে দেখা যায় না কিন্তু তার থেকেও আরও বেশি ক্ষুদ্রতম হলো ভাইরাস। আমাদের এই পৃথিবীতে কোটি কোটি ভাইরাস রয়েছে। আর এই ভাইরাসের মধ্যে অনেক ভাইরাস মানুষের সৃষ্টি আবার কোনোটা প্রাকৃতিক ভাবে সৃষ্টি হয়েছে। এর সঠিক সংখ্যা বা সব তথ্য মানুষের কাছে নেই। সময় বা কালের বিবর্তনে মানুষের সামনে আসে নিত্য নতুন সব ভাইরাসের স্বরূপ। এই সময়ে এমনই একটি নতুন আবিস্কৃত ভাইরাসের নাম ‘করোনা’। যার বৈজ্ঞানিক নাম COVID-19, যা এই একবিংশ শতাব্দিশ আধুনিক মানব সভ্যতাকে ধংসের দারপ্রান্তে এনে দাঁড় করিয়েছে। এই মারন ভাইরাসের দাপটে কয়েক হাজার বছর ধরে গড়ে ওঠা পৃথিবীর আধুনিক সভ্যতা আজ বিপন্ন। পৃথিবীর সব আবিষ্কারই হার মেনেছে এই করোনার সামনে। চরম সামরিক ক্ষমতার অধিকারীরা বিশ্বনেতারাও যেন কুর্নিশ করছে ভাইরাস করোনাকে।

অনেকটা হঠাৎ করেই বিশ্বের বুক মহামারি আকার ধারণ করেছে এই করোণা ভাইরাস। মহামারি আঁকার ধারন করা এই মারন ভাইরাসের উৎপত্তি হয়েছে চীন দেশের উহান প্রদেশ থেকে । বিষয়টি সামনে আসার পর প্রথমে সবাই ধারণা করে চীনাদের বিভিন্ন প্রকার খাদ্য থেকে এই ভাইরাসের উৎপত্তি হয়েছে। কথিত আছে চীন দেশের মানুষেরা পৃথিবীর এমন কোনো কিছু নেই যা তারা খায় না । এমনকি, রাস্তার ড্রেনের পঁচা,ময়লা কিছু পেলেও তারা খাদ্য হিসাবে খেয়ে ফেলে। সাপ,ব্যাঙ,ইদুর,বেঁজি,বিড়াল,অক্টোপাস,বাদুর, আরশোলা, টিকটিকিসহ সকল প্রকার জীব তাদের খাদ তালিকায় রয়েছে। তাই করোণা ভাইরাসের পরিচয় সামেন আসতেই প্রথমে সবাই মনে করেছিলেন তাদের এসব খাদ্যের জন্য এমন ভাইরাসের সংক্রমন হয়েছে। চীনা কতৃপক্ষ বিষয়টি এমনভাবে প্রচারের চেষ্টাও করে। উল্লেখ্য শুরু থেকেই এই ভাইবাসের উৎপত্তি, সংক্রমন, চিকিৎসা ও মৃতের সংখ্যা নিয়ে চীনের ভূমিকা যথেষ্ট রহস্যাবৃত।

কিন্তু আস্তে আস্তে এই ভাইরাস শুধু চীনের গন্ডির মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকেনি । দেশটির সীমানা বা গন্ডি পেরিয়ে বর্তমানে তা গোটা বিশ্বের বুকে ছডিয়ে পড়েছে । বর্তমানে পৃথিবীর প্রায় সব দেশেই এই ভাইরাসের সংক্রমন মহামারি আঁকার ধারণ করেছে। এর দানবীর তান্ডবে অশান্ত হয়ে গেছে সমগ্র পৃথিবী। চারিদিকে চলছে মৃত্যুর মিছিল, কান্নার রোল, খাদ্যের জন্য আহাকার ছড়িয়ে পড়েছে দিকে দিকে। বিজ্ঞানীরা বলেছেন এই ভাইরাস হাঁচি-কাশির থেকে বাতাসের মাধ্যমে একজনের শরীল থেকে অন্য জনের শরীরে মাত্র কয়েক সেকেন্ডেই প্রবেশ করে । তাই সর্বনিন্ম ৫ ফুট দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। কিছু সময় পর পর সাবান বা ক্ষার জাতীয় কিছু দিয়ে নুন্যতম ২০সেকেন্ড ধরে হাত-মুখ,পা ধুয়ে ফেলতে হবে,হাঁচি-কাশি দেওয়ার সময় নাক-মুখ ঢেকে রাখতে হবে। বাইরে গেলে ব্যক্তিগত সুরক্ষার জন্য পড়তে হবে বিশেষ পোষাক। বিশ্বের অনেক দেশ করোনার সংক্রমন থেকে তাদের নাগরিকদের বাঁচাতে মানুষকে ঘরে রাখতে নানান কর্মসুচি পালন করছে। পারস্পরিক শারিরীক দুরত্ব নিশ্চিত করতে ইতিমধ্যেই অনেক দেশ গনছুটি, লকডাউন বা কোথাও কারফিউ দেয়া হচ্ছে। বাস্তায় বের হলেই লাঠি বন্দুক উচিয়ে তেড়ে আসছে আইন প্রয়োগকারি সংস্থার লোকজন।

আপাতত এই ভাইরাসের সংক্রমন হলে প্রচলিত চিকিৎসা ব্যবস্থায় তার কোন সুচিকিৎসা নেই। তাই প্রচেষ্টা চলছে এই ভাইরাসের সংক্রমন থেকে নিজেদের বাচিয়ে চলার। জাপানসহ কয়েকটি দেশ চেষ্টা করছে এই ভাইরাসের চিকিৎসায় প্রচলিত ধারার কোন উপযুক্ত ঔষধকে দ্রুত বাজারে আনার। আবার জার্মানি ও আমেরিকা নির্ঘুম চোখে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে এর শক্ত কোন প্রতিশেধক বের করার। যদিও কাজটি যথেষ্ট সময় সাপেক্ষ। তাই যতক্ষন এই প্রতিশেধক বাজারে সহজলভ্য হবে না ততদিনে নিজেদের এই ভাইরাসের হাত থেকে বাচিয়ে চলার চেষ্টা করাই সবচেয়ে শ্রেয় । আর যদি কারোর শরীরে এই ভাইরাস প্রবেশ করেই বসে তাহলে চেষ্টা করতে হবে সুশ্রষা করে তাকে দ্রুত সুস্থ করে তুলতে । এক্ষেত্রে কাজে আসতে পারে আমাদের প্রাচীন দেশীয় টোটকা ও ভেষজ গুনাগুন সম্পন্য খাদ্যাভাস । কারন আমাদের নানান দেশীয় টোটকা ও ভেষজ খাদ্য সহজেই আমাদের শরীের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে বাড়িয়ে তুলতে পারে। ফলে সহজে কোন ভাইরাস আমাদের শরীরে প্রবেশ করলেও তার সংক্রমন ঘটাতে পারবে না । মানুষ নিজেদের রক্ষা করতে পারবে এই ঘাতক মহামারি করোনার সংক্রমন থেকে। সরকারেরও উচিত সর্বাধিক গুরুত্ব সহকারে এ বিষয়ে দ্রুত জনসচেতনতা তৈরীতে উপযুক্ত কার্যকরি পদক্ষেপ গ্রহন করার।

Comments

Rafiul Alam

2020-04-23 05:07:32 PM


very nice

pritam bosu

2020-04-19 04:18:03 AM


very well descripted

Osama sheikh

2020-04-18 05:06:19 PM


nice writing

Osama sheikh

2020-04-18 05:06:08 PM


nice wriy

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')