News71.com
 Lifestyle
 02 Nov 23, 12:42 PM
 212           
 0
 02 Nov 23, 12:42 PM

অতিরিক্ত প্রেমের অনুভূতি যখন মানসিক ব্যাধি

অতিরিক্ত প্রেমের অনুভূতি যখন মানসিক ব্যাধি

 

জীবনযাপন ডেস্কঃ অতিরিক্ত কোনো কিছুই ভালো নয়, এমনকি প্রেম-ভালোবাসাও। সম্পর্কের সুন্দরতম রূপগুলোর একটি প্রেম। তবে ‘অতিরিক্ত’ অনুভূতিশীল হয়ে উঠলে এই প্রেমের সম্পর্কই হয়ে উঠতে পারে বিষাক্ত। এই তিন লক্ষণ দেখে বুঝে নিন চমৎকার প্রেমের সম্পর্কটা আর নিছক প্রেম-ভালোবাসায় আটকে নেই, সেটা ‘অবসেসিভ লাভ ডিজঅর্ডার’এ পরিণত হয়েছে।

 

১. আপনি যতটা ভালোবাসেন, যেভাবে ভালোবাসেন, অপর পক্ষের কাছ থেকেও সেভাবেই আশা করেন। আপনি জোর করেই ভালোবাসা চান। সেই ফিরতি ভালোবাসা না পেলে যেকোনো কিছু করে ফেলতে পারেন। কিন্তু আপনি একজনকে ভালোবাসলেই সে-ও যে আপনাকেই ভালোবাসবে, এমন কোনো কথা নেই! এটা ধ্রুব সত্য, স্বাভাবিক। আপনি যত সহজে এটা মেনে নেবেন, ততই মঙ্গল। আপনার যদি মনে হয়, ‘ও আমার হলো না, তাহলে ও অন্য কারও হতে পারবে না, অন্য কারও সঙ্গে সম্পর্কে যেতে পারবে না’ তাহলে আপনি মানসিকভাবে অসুস্থ! 

 

২. যখন আপনি আপনার ভালোবাসার মানুষটাকে ‘অতিরিক্ত অধিকার’ করার মাধ্যমে ভুলে যান যে সে একটা স্বাধীন ভিন্ন সত্তা। তখন আপনি খুশিমতো নিজের বানানো আইন তার ওপর চাপিয়ে দেন। অপর পক্ষকে মানসিক চাপে রাখেন। সম্পর্কে এটা খুবই অস্বাস্থ্যকর চর্চা। অবশ্য হ্যাঁ, এ বিষয়টির অনেকটাই নিজেদের বোঝাপড়ার ওপর নির্ভর করে যে আপনি কতটুকু চাইতে পারবেন আর পারবেন না। তবে আপনি যদি নিজের ইচ্ছা অযৌক্তিক আর অন্যায়ভাবে জোর করে অন্যের ওপর চাপিয়ে দেন, সেটা অন্যায়। সুস্থ্য সুন্দর সম্পর্কের জন্য অপর পক্ষকে তাঁর মতো করেই গ্রহণ করা জরুরি। প্রতিটা মানুষের স্বাধীন সত্ত্বায় ব্যাঘাত ঘটানো যাবে না।।

 

৩. আপনার স্বামী বা স্ত্রীকে আপনি ক্রমাগত সন্দেহ করেন। তাঁর হোয়াটসঅ্যাপ, মেসেঞ্জার, ফোনকল ক্রমাগত চেক করতে থাকেন। সে কোথায় গেল, কার সঙ্গে কথা বলল, কী বলল-এগুলোর ওপর নজরদারি রাখেন। কারও সঙ্গে কথা বললে আপনি সেটা সহ্য করতে পারেন না। তাঁকে নিজের আয়ত্তে রাখতে আপনি নানা বিধিনিষেধ চাপিয়ে দেন!

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন